টিডিএন বাংলা ডেস্ক:  সৌদি সরকার সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করে নেয়ার পর তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া কয়েকজন মার্কিন কর্মকর্তাও প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস তাৎক্ষণিক এক বিবৃতিতে ওই হত্যাকাণ্ডে গভীর দুঃখ প্রকাশ করে এ ব্যাপারে নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সবরকম প্রভাবের ঊর্ধ্বে থেকে এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করতে হবে।

অন্যদিকে হোয়াইট হাউজ সৌদি আরবের স্বীকারোক্তিতে সন্তোষ প্রকাশ করেছে। হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স বলেছেন, জামাল খাশোগির গুম হওয়ার ব্যাপারে সর্বশেষ তদন্তের যে ফলাফল সৌদি আরব প্রকাশ করেছে এবং এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নিয়েছে তাতে সন্তোষ প্রকাশ করছে হোয়াইট হাউজ। স্যান্ডার্স আরো বলেন, খাশোগির হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ওয়াশিংটন গভীর দুঃখ প্রকাশ করছে এবং তাঁর পরিবার, বাগদত্তা ও বন্ধুদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে।

তবে মার্কিন সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, ‘প্রথমে বলা হলো খাসোগজি কনস্যুলেট ত্যাগ করেছেন এবং তাঁর নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সৌদি আরবের কোনো হাত নেই। এখন বলা হচ্ছে, সৌদি যুবরাজের অজ্ঞাতসারে কনস্যুলেটের ভেতরেই খাসোগজিকে হত্যা করা হয়েছে। নতুন এই ব্যাখ্যা মেনে নেয়া কঠিন।’

মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে নির্বাচিত প্রতিনিধি টেড লিউ সৌদি আরবের সর্বশেষ ঘোষণাকে ‘অর্থহীন’ আখ্যায়িত করেছেন। তিনি তুর্কি ও মার্কিন গোয়েন্দা সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, ‘সংঘর্ষে’ নিহত ব্যক্তির দেহ করাত দিয়ে কেটে টুকরো টুকরো করার প্রয়োজন ছিল না।

Not available