টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ২০১৭ সালের পর থেকে মায়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির হাজার হাজার মুসলিমদের হত্যা করেছে। হাজার হাজার মহিলাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। এমনকি ওই হত্যার ছবি প্রকাশ করায় রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে ৭ বছরের জেলও দেয়া হয়। ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে প্রাণ বাঁচানোর জন্য প্রায় ৭ লাখ মানুষ দেশ ছেড়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছে। এ পর্যন্ত মায়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত‍্যায় জড়িতের মধ‍্যে মাত্র ৭ জন সেনাকে বিচারের আওতায় আনা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ১০ জন রোহিঙ্গাকে হত্যার দায়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মাত্র ৭ মাস জেল খাটার পর তাদের কে আগাম মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

সূত্রের খবর, কারাগারের কর্মকর্তারা বলছেন, ২০১৮ সালের এপ্রিলে ইনদিন হত্যাকান্ডের জন্য দন্ডিত হয়েছিল এসব সেনারা, কিন্তু তারা এখন আর আটক নেই। এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য দিতে রাজি হননি তারা।

রয়টার্স ইনদিন গণহত্যা উন্মোচিত করে এবং প্রথম খবরটি প্রকাশ করে।এর জেরে রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে ৭ বছরের জেল দেয়া হয়। পরে রাষ্ট্রপতির ক্ষমার আওতায় তাদেরকে ১৬ মাস পরে মুক্তি দেয়া হয়। সংস্থাটি জানায়, নভেম্বর মাসে সৈনিকদের মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর ২০১৭ সালের ক্র্যাডডাউনের জন্য এ পর্যন্ত একমাত্র এই সাতজনকেই বিচারের আওতায় আনা হয়েছিলো। সেখানে সামরিক অভিযানের ফলে ৭ লাখেরও বেশি মানুষ দেশ থেকে পালিয়ে যায়।