টিডিএন বাংলা ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাস্পের পথ অনুসরণ করে এবার জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার কথা ভাবছে অস্ট্রেলিয়া। ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তেল আবিব থেকে দূতাবাস জেরুজালেমে সরিয়ে নেয়ার। এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেন ট্রাম্প।
অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জেরুজালেমকে রাজধানী ঘোষণা করা দায়িত্ববানের মতো প্রস্তাব, কেননা দেশ দু’টির সমস্যা সমাধানে কোনও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি আপাতত দেখা যাচ্ছে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘এটা খুব স্পষ্ট করে বলা দরকার, দেশ দু’টির পরিস্থিতি ভালো নয়। সংঘাত নিরসনে এখন পর্যন্ত সেরকম কোনও অগ্রগতিও দেখা যায় নি। আর আপনি প্রতিনিয়ত একই কাজ করে অন্যরকম ফলাফল চাইবেন সেটা তো সম্ভব না।’
গত জুনে অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্রকে অনুসরণ করে ইসরাইলের তেল আবিব থেকে দখলকৃত জেরুজালেমে দূতাবাস সরিয়ে নেবে না তারা। দেশটির তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জুলি বিশপ ওই ঘোষণা দেন।
বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো বলছে, অস্ট্রেলিয়ার আসন্ন গুরুত্বপূর্ণ উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রতারণামূলক এ কাজটি করে জনসমর্থন আদায় করার চেষ্টা করছেন স্কট মরিসন।
উল্লেখ্য, অস্ট্রেলিয়ার ইহুদি-অধ্যুষিত ওয়েন্টওর্থ ইলেকট্রোরেটের উপ-নির্বাচনে জেতার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন মরিসন। কেননা ওই এলাকায় না জিতলে বর্তমান হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভের সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবে তার দল। এরই প্রেক্ষিতে জাতিগত ভাবাবেগ কাজে লাগিয়ে নির্বাচনে জেতার কৌশল হিসেবেই এ ঘোষণা দিলেন তিনি।