টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বাংলাদেশে আওয়াীলীগ সরকারের আমলেই হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর সব চেয়ে বেশী জুলুম নির্যাতন হয়েছে। তদন্তে দেখা গেছে রামুর ঘটনাতেও আওয়ামীলীগ, যুবলীগ এবং ছাত্রলীগ জড়িত ছিল। নাসিরনগরেও তাদের উপজেলা চেয়ারম্যান সরাসরি জড়িত। পাগলাপীরের ঘটনায়ও উচ্চ পর্যায়ের নিরেপক্ষ বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে। নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে দুর্বৃত্তদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। পুলিশ যেন অযথা কাউকে হয়রানী না করে।
তিনি সোমবার সকাল ১১টায় রংপুরের পাগলাপীর সলেয়াশা ঠাকুরপাড়ায় হিন্দু পল্লীতে ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুদের বাড়িঘর ও মন্দির এবং গুলিতে নিহত চায়ের দোকানের কর্মচারী হাবিবুর রহমান হাবিবের বাড়ি পরিদর্শণ শেষে উপস্থিত সাংবাদিক ও জনতার উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন তিনি। পাগলাপীরের ঘটনায় বিএনপি থেকে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত টিম পাঠানোর ঘোষণা দিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিএনপির ওপর এ ঘটনার জন্য দোষ চাপানো সর্বৈব মিথ্যা বানোয়াট ও হীন উদ্দেশ্য প্রণোদিত। রামুর ঘটনা দেশবাসী শুনেছেন, দেখেছেন। ইনভেস্টিগেশন দেখেছেন। আমাদেরও ইনভেস্টিগশন টিম সেখানে গিয়েছিল। কি দেখে তারা সেখানে। আওয়ামীলীগ যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতৃবন্দ সেখানে ঘটনা ঘটিয়েছে। পাবনার ঘটনা কারা ঘটিয়েছে আপনারা জানেন। নাসিরনগরে তো প্রকাশ্যে সেখানকার যে উপজেলা চেয়ারম্যান তার নেতৃত্বে ঘটনা ঘটেছে। কোথায় এখানে বিএনপির নেতাদের পাচ্ছেন যে তারা এ ধরনের ঘটনার সাথে জড়িত। তিনি আরও বলেন, আমাদের সরকারকে অনুরোধ করবো তারা যেন খতিয়ানগুলো খুলে দেখেন। স্যাটিটিক্সগুলো দেখেন। সেই স্ট্যাটিটিক্সের মধ্যে দেখবেন কোন সরকারের আমলে বেশী করে এই হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর জুলুম নির্যাতন হয়েছে, সংখালঘু সম্প্রদায়ের উপর অত্যাচার হয়েছে। তাহলেই বোঝা যাবে আওয়ামীলীগ সরকারের আমলেই সবচেয়ে বেশী এই সম্প্রদায়ের ওপর বেশী আঘাত এসেছে। তাদের ঘরবাড়ি ও সম্পদ নষ্ট করা হয়েছে। এই খবর প্রকাশ করেছে দৈনিক ইনকিলাব।