টিডিএন বাংলা ডেস্ক : তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানের সাথে সিরিয়া ইস্যুতে ফোনে আলোচনা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত বৃহস্পতিবার রাতে তাদের মধ্যে এ আলোচনা হয়। ফোনে দুই প্রেসিডেন্ট সিরিয়ার সর্বশেষ পরিস্থিতি, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য যৌথ বাহিনী গঠন এবং সঙ্ঘাত নিরসনে রাজনৈতিক সমাধানে সহায়তা ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করেন।

এ সময় এরদোগান ও ট্রাম্প দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নের ব্যাপারে প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন।গত বছরের ডিসেম্বরের ট্রাম্প এক ঘোষণায় সিরিয়া থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত জানান। সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশ পরাজিত হয়েছে দাবি করে তিনি এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। এর কিছুদিন পর এরদোগান জানান, সিরিয়ায় রয়ে যাওয়া অবশিষ্ট সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই করবে তার দেশ। এ সময় সেখানে ওয়াইপিজের শাখা পিকেকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা দেয়।

তুরস্কের এ সিদ্ধান্তে অস্থিরতা শুরু হয় ওয়াশিংটনে। কারণ সিরিয়ায় তারা লড়াইয়ের সময় সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস (এসডিএফ) এর সহায়তা নিয়েছিল। এই এসডিএফের সিংহভাগেই রয়েছে ওয়াইপিজি। তুরস্কে যারা একটি সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত। তুরস্ক দাবি করে, এই দলটি তুরস্কে যে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়েছে তাতে ৪০ হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে।

ফলে এ বিষয়টি নিয়ে আঙ্কারা ও ওয়াশিংটনের উত্তেজনা দেখা দেয়। ওয়াশিংটনের সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর তালিকায় পিকেকের নাম থাকলেও দায়েশের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সময় তাদের সাহায্যই নিয়েছিল মার্কিন সেনাবাহিনী। এতে তারা ন্যাটোর সহযোগী দেশগুলোর সতর্কবার্তাও উপেক্ষা করে।