টিডিএন বাংলা, ডেস্ক : চীন মিয়ানমারকে জাতিগত অস্থিরতা ঠেকাতে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে গতকাল বুধবার। দেশটিতে মিয়ানমারের সফররত একটি প্রতিনিধিদলকে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং য়ি এধরনের প্রতিশ্রুতি দেন। এ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন থিন মিও উইন। চীন বলেছে, দেশটি এ সমস্যা নিরসনে মিয়ানমারের সঙ্গে কাজ করতে চায়। চীনে গত কয়েক সপ্তাহে অন্তত ৩ হাজার রোহিঙ্গা আশ্রয় নেয়ার পর এধরনের ঘোষণা দিল দেশটি। এছাড়া গত বছর চীন সীমান্তে গোলযোগে অন্তত ৫ জন চীনা নাগরিক নিহত হবার ঘটনা ঘটে। মিয়ানমার সীমান্তে সীমান্তে সহিংসতা ঠেকাতে চীন, মিয়ানমারের সঙ্গে কাজ করতে চায়। রোহিঙ্গা রাজ্যে যে সামরিক শক্তি প্রয়োগ করছে মিয়ানমার তার পরিবর্তে চীন আলোচনা করে এ সমস্যার সমাধানের কথা বলেছে।
মিয়ানমার অভিযোগ করে আসছে সন্ত্রাসীরা দেশটির পুলিশ বাহিনীর ওপর সশস্ত্র হামলা চালায়। এরপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা রাখাইন রাজ্যে অন্তত ৩০ হাজার রোহিঙ্গা মুসলমানদের ঘরবাড়ি থেকে বের করে দিয়ে অগ্নিসংযোগ করে। চীনের সঙ্গে মিয়ানমারের সীমান্তে স্থিতিশীল পরিবেশ বজায় রাখতে দেশটি সাহায্য করার কথা বলছে।
এছাড়া চীনের পররাষ্ট্র দফতর থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বেইজিং মিয়ানমারে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করছে। দুটি দেশের কূটনৈতিক ও সামরিক তৎপরতায় উভয় দেশের সীমান্তে শাস্তি বজায় রাখার ওপর গুরুত্ব দিয়ে বলা হয় রোহিঙ্গা ইস্যুটি সামরিক শক্তি দিয়ে নয়, আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান করা উচিত। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয় আরো বলেন, তার দেশ মিয়ানমারের অভ্যন্তরে হস্তক্ষেপ করতে চায় না। বরং গঠমূলক ভূমিকা রাখতে চায় যাতে দেশটির সীমান্তে স্থিতিশীলতা বজায় থাকে।
মিয়ানমার প্রতিনিধিদলের নেতা থিন মিও উইন বলেন, তার দেশ এব্যাপারে চীনের সহযোগিতা কামনা করে। চীন মিয়ামারে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে যে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে তাও উপলব্ধি করছে তার দেশ।

Advertisement
mamunschool