টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা নির্দিষ্ট কয়েকটি স্থান দখল করেছে। সীমান্ত এলাকার কেন্দ্রস্থলে তুমুল লড়াই চলছে এবং এতে অন্তত ৭ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর খবর দিয়েছে কুর্দি রেড ক্রিসেন্ট। লড়াই থেকে বাঁচতে বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালাচ্ছে মানুষ। যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার ওই অঞ্চল থেকে সেনা প্রত্যাহারের পরই কুর্দি নেতৃত্বাধীন বাহিনীর ওপর এ অভিযান শুরু করেছে তুরস্ক। সিরীয় কুর্দিরা যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র বাহিনী হলেও তুরস্ক তাদেরকে ‘সন্ত্রাসী’ বলেই গণ্য করে। সিরিয়ায় কুর্দি বাহিনীর বিরুদ্ধে তুরস্কের শুরু করা অভিযানে লড়ছে তুর্কি-সমর্থিত ফ্রি সিরিয়ান আর্মির সিরীয় বিদ্রোহীরাও। সিরিয়া-তুরস্ক সীমান্তের মধ্যাঞ্চলে রাস আল-আইন এবং তাল-আবিয়াদ শহরের মধ্যে বড় ধরনের স্থল হামলা হওয়ার খবর জানিয়েছে কুর্দিরা। রাস আল-আইনে বেশ কয়েকদফা বিমান হামলাও হয়েছে এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা সেখানকার আকাশে জঙ্গিবিমান চক্কর দিতে এবং গোলাবর্ষণ করতে দেখার কথা জানিয়েছেন। অভিযান খুব সফলভাবেই চলেছে এবং তাল আবিয়াদের পূর্বাঞ্চলে বেশ কয়েকটি গ্রামও সেনাদের দখলে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়। অপর এক খবরে বলা হয়, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েপ এরদোগান হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ইউরোপীয় দেশগুলো সিরিয়ায় তুর্কির সামরিক অভিযানের বিরোধিতা করলে তিনি সীমান্ত খুলে দেবেন। এর মাধ্যমে তিনি ৩৬ লাখ সিরীয়কে প্রবেশের সুযোগ দিয়ে ইউরোপে শরণার্থীদের ঢল নামিয়ে দেবেন। বৃহস্পতিবার দলের আইনপ্রণেতাদের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি এ কথা বলেছেন। এরদোগান বলেন, আমরা গেটগুলো খুলে দেব এবং ৩৬ লাখ শরণার্থীকে আপনাদের পথে পাঠিয়ে দেব। বুধবার সিরিয়ার উত্তর-পূর্ব সীমান্তে কুর্দিদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করেছে তুরস্ক। কুর্দি ওয়াইপিজি মিলিশিয়া নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সকে (এসডিএফ) নিজেদের শত্রু মনে করে আঙ্কারা। তুরস্কের দাবি, সিরিয়ার শরণার্থীদের তাদের দেশে ফিরে যেতে সহায়তার জন্য একটি ‘নিরাপদ জোন’ প্রতিষ্ঠায় তারা এ অভিযান চালাচ্ছে। এদিকে, বুধবার তুরস্ক জানিয়েছে, ‘অপারেশন পিস স্প্রিং’ নামের অভিযানে উত্তর সিরিয়ায় একদিনেই ১০৯ ‘সন্ত্রাসী’ নিহত হয়েছে। রয়টার্স, আনাদোলু।