টিডিএন বাংলা ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের দুই মসজিদে গুলী চালিয়ে ৫০ মুসল্লিকে হত্যার ঘটনায় সংবাদ মাধ্যমগুলোকে একহাত নিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সোমবার টুইটারে দেয়া এক পোস্টে তিনি বলেছেন, ‘নিউ জিল্যান্ডের ভয়াবহ হামলার জন্য আমাকে দোষারোপ করতে ফেক নিউজ মিডিয়া ওভারটাইম করছে। এটি প্রমাণে তাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। খুবই অদ্ভূত!’

২০১৯ সালের ১৫ মার্চ পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, নিউজিল্যান্ডের দুই মসজিদে গুলী চালিয়ে ৫০ মুসল্লিকে হত্যা করে উগ্র মুসলিমবিদ্বেষী অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্ট। এর আগে অনলাইনে ১৬ হাজার ৫০০ শব্দের একটি ইশতেহারে নৃশংস এ হামলার পেছনে নিজের বক্তব্য তুলে ধরে হামলাকারী। এতে নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসের এই নৃশংস খুনি দাবি করে, শ্বেতাঙ্গরা গণহত্যার শিকার এবং সে যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে দিতে চায়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘শ্বেতাঙ্গ পরিচয়ের নতুন প্রতীক’ হিসেবে আখ্যায়িত করে মুসলমানদের জন্য একটি ভীতিকর পরিবেশ তৈরিরও আহ্বান জানায় হামলাকারী।

হামলার পর এক প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেন, শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদ কোনও সমস্যা নয়। নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হত্যাযজ্ঞ নিয়েও টুইটারে একটি পোস্ট দেন ট্রাম্প। তবে তাতে মুসলিম শব্দটি পর্যন্ত উল্লেখ করেননি তিনি। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘মসজিদের ভয়াবহ হত্যাকা-ের ঘটনায় নিউজিল্যান্ডের জনগণের প্রতি আমার সহমর্মিতা ও শুভ কামনা রইলো। নিরপরাধ মানুষ সংজ্ঞাহীন হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। গুরুতর আহত হয়েছে আরও অনেকে। যুক্তরাষ্ট্র যতটুকু সম্ভব নিউ জিল্যান্ডের পাশে আছে। ঈশ্বর সবার সহায় হোন!’
এ টুইটে ‘শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ’ নিয়ে কোনও মন্তব্য না করায় সমালোচনার মুখে পড়েন ট্রাম্প। এরমধ্যেই নতুন করে টুইট করে সংবাদমাধ্যমকে একহাত নিলেন তিনি।