রোকাইয়া খাতুন, টিডিএন বাংলা : প্রত্যেক দেশেই স্কুলের বেতন হিসাবে সাধারণত নগদ অর্থই দেওয়া হয়। জিম্বাবুয়েতে বিষয়টি একটু অন্য। এখানে শিক্ষকেরা নগদ অর্থের পরিবতে বেতন হিসাবে পান গরু-ছাগল। তবে শুধু গবাদি পশুই নয় নানাধরনের সেবাও বেতনের বিকল্প হিসাবে গ্রহণ করা হবে। শিক্ষামন্ত্রী লাজারুস ডোকোর সানডে মেইল পত্রিকাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘কেউ ছুতোরের কাজ করলে তাকে দিয়ে স্কুলে ছুতোরের কাজ করিয়ে নেওয়া যেতে পারে, অর্থাৎ বেতন হিসাবে শ্রম দেওয়া যেতে পারে। কারণ বর্তমান দেশের অথনৈতিক পরিস্থিতিতে স্কুলগুলিকে অনেক নমনীয় হতে হবে বেতন আদায়ের ক্ষেতে।’

সম্প্রতি এই দেশের সংসদে একটি নতুন আইন পাশ হয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে জামানত হিসাবে ব্যাংকগুলো মোটরগাড়ি, বা যন্ত্রপাতির মতো অস্থাবর সম্পত্তি গবাদি পশুকে  গ্রহণ করতে পারবে, যেমন গরু, ছাগল, ভেড়া ইত্যাদি। বর্তমানে ওই দেশের সরকার অভিযোগ করছে, দেশের অর্থনৈতিক দূরবস্তার কারণ এক শ্রেণীর মানুষ দেশ থেকে টাকা বিদেশে পাচার করছে। যার কারণে মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছে। তবে নিন্দুকেরা বলছে, এর জন্য দায়ী বেকারত্ব ও বিনিয়োগ সঙ্কট।