টিডিএন বাংলা ডেস্ক: পুলিশ হেফাজেতে এক কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর জের বিক্ষোভের আগুনে জ্বলছে আমেরিকা। এখনও প্রজন্ত ১৪০০ জন বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর, দোকান লুটপাটসহ আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ চলছে। এরই মধ্যে পুলিশ স্টেশনে আগুন দেওয়া সহ ঘটেছে সহিংসতার ঘটনা। “বর্ণবিদ্বেষের আগুন ধরিয়েছেন, নভেম্বরেই আপনাকে তাড়াব”, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্পের সামোচনায় বিস্ফোরক টুইট গ্র্যামী জয়ী সঙ্গীতশিল্পী টেইলর সুইফের। শুক্রবার ট্রাম্পের সমালোচনায় করা সুইফটের এই টুইট এখন পর্যন্ত তাঁর সবচেয়ে বেশি লাইক পাওয়া টুইটের রেকর্ড গড়েছে।

টুইটে টেইলর সুইফট লিখেছেন, ‘আপনি নিজের শাসনকালে শুধুমাত্র শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ ও বর্ণবিদ্বেষের আগুন ধরিয়েছেন, হিংসাত্মক এই হুমকি দেওয়ার আগে আপনার এতকটুও বিবেকে বাধলো না? লুটপাট শুরু হলেই গুলি শুরু হবে? আমরা নভেম্বরেই আপনাকেই ভোট আউট করব’। এখনও পর্যন্ত ২০ লক্ষ মানুষ এই টুইটে লাইক দিয়েছেন। রি-টুইট করেছেন প্রায় ৫ লক্ষ মানুষ।

সোমবার পুলিশকর্মীর দ্বারা কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে অগ্নিগর্ভ আমেরিকা। সোমবার মিনিয়াপোলিসে নাগাড়ে ৮ মিনিট হাঁটু দিয়ে গলা টিপে রেখে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয় ফ্লয়েডকে। জর্জ ফ্লয়েডের খুনের জেরে প্রতিবাদে পথে নেমেছে মার্কিনবাসী। পরিস্থিতি সামলাতে নাজেহাল পুলিশ-প্রশাসন। বিক্ষোভকারী এবং পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে যুক্তরাষ্ট্রের ১৭ টি  শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে। এ ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে ব্যাপক মাত্রায় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। বিক্ষোভকারীদের উপর টিয়ার গ্যাস এবং রাবার বুলেট ছুড়েছে দাঙ্গা পুলিশ। কয়েকটি শহরে পুলিশের যানে আগুন দেয়া হয়েছে।

ট্রাম্পের টুইট ও টুইটারের সতর্কীকরণ বার্তা

এরপরই বৃহস্পতিবার বিক্ষোভকারী জনগণের উদ্দেশে হুমকি দিয়ে টুইট করেন ট্রাম্প। এই সংঘর্ষের জন্য প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার ভাষায় “লুটেরা এবং বিশৃঙ্খলাকারীদের” দোষারোপ করেছেন। টুইতে তিনি লেখেন, ‘…যে কোনো জটিলতাই আমরা নিয়ন্ত্রণে নিতে পারি। যখনই লুটপাট শুরু হবে তখনই গুলিও শুরু হবে।’

ট্রাম্পের এই টুইটকে ঘিরে সমালোচনার ঝড় সবমহলেই। এমনকি টুইটার কর্তৃপক্ষও একটি বিশেষ সর্তকীকরণ বার্তা জুড়তে বাধ্য হয়েছে এই টুইটের সঙ্গে। ট্রাম্পের টুইট টুইটারের গাইডলাইনের বিরুদ্ধে,কারণ এটি হিংসায় প্ররোচণা দিচ্ছে, তবুও জনসাধরণের স্বার্থে প্রেসিডেন্টের এই বার্তা মুছে না দিয়ে একটি সর্তকীকরণ বার্তা যুক্ত করেছে টুইটার।