টিডিএন বাংলা ডেস্ক : আন্তর্জাতিক মঞ্চে আরও বিপাকে ইমরান খানের সরকার। পাকিস্তানকে ‘ন্যাটো বহির্ভূত মিত্র’ তালিকা থেকে বাদ দিতে পারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন কংগ্রেসে এই আর্জি নিয়ে বিল পেশ করেন রিপাবলিকান কংগ্রেস সদস্য অ্যান্ডি বিগস। ‘ন্যাটো বহিভূর্ত মিত্র’ তালিকায় পাকিস্তানকে থাকতে হলে বেশি কয়েকটি শর্ত চাপানো হয়েছে। প্রস্তাবটি পাঠানো হয়েছে মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের বিদেশ বিষয়ক কমিটিতে।

ক্ষমতায় এসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তত্পর হন সন্ত্রাস দমনে নানা পদক্ষেপ করতে। পাকিস্তানকে ‘সন্ত্রাসের ভূস্বর্গ’ বলে তকমা দিয়ে যাবতীয় সামরিক অনুদান বন্ধ করেন তিনি। এর পর যদি ‘ন্যাটো বহির্ভূত মিত্র’ তালিকায় বাদ পড়লে আন্তর্জাতিক স্তরে কূটনৈতিকভাবে অনেকটাই ব্যাকফুটে চলে যাবে পাকিস্তান। সন্ত্রাসে ইন্ধন দেওয়ার বিষয়ে পাকিস্তানের বিরোধিতা বরাবর করে এসেছে ভারত। এমনকি রাষ্ট্রসংঘেও জোরালো সওয়াল করা হয়।

কংগ্রেস সদস্য বিগসের আনা প্রস্তাবে বলা হয়েছে, পাকিস্তানকে প্রমাণ করতে হবে ‘আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন’ হক্কানি নেটওয়ার্ক বিরুদ্ধে যথাপোযুক্ত ব্যবস্থা নিয়েছে ইসলামাবাদ। সন্ত্রাস দমনে আফগান সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করছে পাকিস্তান। এমনকি হক্কানি নেটওয়ার্কের রাঘববোয়ালদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রমাণ দেখাতে হবে পাকিস্তানকে। যদিও, ন্যাটো বহির্ভূত মিত্র তালিকায় পাকিস্তান থাকবেন কি না তা শেষমেশ নির্ধারণ করবেন মার্কিন প্রেসিডেন্টই। উল্লেখ্য, ২০০৪ সালে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের জমানায় ‘ন্যাটো বহির্ভূত মিত্র’ তকমা পায় পাকিস্তান।