টিডিএন বাংলা ডেস্কঃ গত ৬ই ডিসেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোলান্ড ট্রাম্প জেরুজালেম শহরকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করে। অবশ্য রাষ্ট্রসংঘে এই দাবির বিরুদ্ধে ভারতসহ ১২৮ টি দেশ ভোট দিয়েছে। এর ফলে ডোলান্ড ট্রাম্পের এইরকম একনায়কতন্ত্রের ভীত কিছুটা হলেও নড়েছে। জেরুজালেম নিয়ে এই ঘোষণার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছে বিশ্বের বহু মুসলিম দেশ। এবার সুদানের প্রেসিডেন্ট ওমর হাসান আল বশির সাম্প্রতিক সুদানের পুর্বাঞ্চলীয় এক উন্নয়ন প্রকল্প উদ্ধোধন উপলক্ষে এক বিশাল সমাবেশে সুদানের প্রত্যেকটি জনগন জেরুজালেম রক্ষার যুদ্ধে অংশ নিতে প্রস্তুত রয়েছে বলে আমেরিকাকে হুসিয়ারী দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত ১৯৮৯ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা ওমর হাসান আল বশির একজন কট্টর ইসলাম পন্তী হিসেবে বিশ্ব দরবারে পরিচিত। আফগান যাওয়ার পুর্বে ওসামা বিন লাদেন সোমালিয়ায় মার্কিন সেনাদের শক্ত ধোলাই দেওয়ার পর কট্টর সৌদ পরিবারের অনুগত এই শাসক লাদেনকে সুদানে রাজকীয় মর্যাদায় আশ্রয় দেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে আমেরিকা ক্ষিপ্ত হয়ে দক্ষিন সুদান নামে এক রাষ্ট্র প্রতিষ্টা করে সুদান থেকে বিশাল ভুমি কেড়ে নেন।

এই প্রেসিডেন্ট ওমর হাসান আল বশির একটি দরিদ্র রাষ্ট্রপ্রধান হয়েও আমেরিকার সাথে কুটনৈতিক লড়াই করে কিভাবে যুগের পর যুগ টিকে থাকতে হয় তা বিশ্ব মুসলমানকে দেখিয়ে দিয়েছেন। দারিদ্রতা বিমোচন ও রাষ্ট্রের উন্নয়নের জন্য মাত্র এক বছর পুর্বে সৌদি ৫ বিলিয়ন ডলার অর্থ সহায়তা দেয় সুদানকে।