টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ইসলাম ধর্মের শেষ ধর্মপ্রচারক ও নবী হজরত মহম্মদ (সাঃ) এর জীবনের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখতে পাওয়া যায় যে, মহম্মদ মাত্র ২৩ বছরে ইসলাম ধর্মকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছিলেন। তার একটাই কারণ ছিল প্রত‍্যেক ধর্মের মানুষের প্রতি সদব‍্যবহার ও বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ। যার ফলে মানুষ অবাক হয়ে মহম্মদের আদর্শ দেখে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম গ্ৰহণ করেছিলেন। মানুষ বেশি বেশি করে কুরআন পড়তেন এবং ইসলাম কে জানার জন্য আগ্ৰহ প্রকাশ করতেন। ফলস্বরূপ মানুষ যত বেশি বেশি কুরআন পড়তেন তত বেশি বেশি কুরআনের প্রেমে পড়ে যেতেন। তাই ইসলাম খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্বের দরবারে পৌঁছে যায়।

সম্প্রতি কুরআন অনুবাদ করে মহম্মদের দেশ সৌদি আরবে গিয়ে ইসলাম গ্রহণ করলেন ৭০বছর বয়সী আমেরিকার এক খ্রিস্টান যাজক। মঙ্গলবার সৌদি গণমাধ্যম সাবাককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সাবেক মার্কিন যাজক স্যামুয়েল আর্ল শ্রপশায়ার এ কথা বলেছেন। স‍্যামুয়েল ইসলাম গ্ৰহণ করার পর সংবাদ মাধ্যমকে বলেন,সৌদি আরবে যাওয়ার পর বন্ধুত্বপূর্ণ আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়েই তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ২০১১ সালে প্রথম সৌদিতে যান পবিত্র কুরআনকে নতুন ভাবে অনুবাদের উদ্দেশ্যে। সেই সময় মার্কিন গণমাধ্যমগুলোতে মুসলমানদেরকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপ করছিল। কিন্তু তিনি যখন সৌদি আরবে পৌছলেন তখন তিনি সম্পূর্ণ নতুন পরিবেশ লক্ষ করলেন। তার মনে এতোদিন মুসলিমদের সম্পর্কে যে ভুল ধারণা ছিল তার সম্পূর্ণ ভেঙে গেল। তিনি বলেন, আমি সেখানে তাদের আচার আচরণে মুগ্ধ হয়ে যায়। আমকে অবাক করে তাদের ব‍্যবহার। আমি কোন ধর্মের লোক তারা বিবেচনা না করেই আমার সঙ্গে তারা সৎ ও ভালো ব‍্যবহার করে।

সৌদি আরবের জেদ্দায় তিনি কুরআনের অনুবাদ করার সময় সেখানকার মানুষের যে সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণ ও আতিথেয়তা পেয়েছেন তা কখনোই ভুলতে পারবেন না। সেই ব‍্যবহারই স‍্যামুয়েল কে মুগ্ধ করে এবং তখন থেকেই তার ইসলামের প্রতি ভালোলাগা ভালোবাসা তৈরি হয়। স‍্যামুয়েল বলেন, সৌদিরা শুধুমাত্র এক আল্লাহকেই স্রষ্টা হিসেবে তারই উপাসনা করে। তাদের মধ্যে একটা ভালো ধরনের নৈতিকতা রয়েছে।

স‍্যামুয়েল বর্তমানে সৌদি আরবেই রয়েছেন। তিনি শান্তি ও সংহতির জন্য মুসলমানদের কণ্ঠস্বর নামে অলাভজনক সংগঠন প্রতিষ্ঠাও করেছেন।