টিডিএন বাংলা ডেস্ক : ক্রাইস্টচার্চে হামলার পর স্কাই নিউজের এক জুনিয়র গণসংযোগ কর্মকর্তা পদত্যাগ করেছেন। তার অভিযোগ, মুসলমানদের বিরুদ্ধে ভাষ্যকাররা মেরুকরণ ও আতঙ্ক বাড়িয়ে তুলছেন।

স্কাই নিউজ টেলিভিশনের তিন বছর কাজ করেছেন রাশনা ফাররুক। এবিসি অনলাইনকে তিনি লিখেছেন, কোনো কোনো রাতে আমি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়তাম। এমনকি বাড়ি আসার পথে গাড়ির ভেতরে আমি কান্না করতাম। কারণ নিজের মূল্যবোধের সঙ্গে নিয়মিত আপস করতে হচ্ছে আমাকে।-খবর গার্ডিয়ানের

তিনি বলেন, ক্রমাগত দোষ চাপিয়ে দেয়া একটি ধর্মীয় গোষ্ঠীর একজন সদস্য হিসেবে নিজের মূল্যবোধের সঙ্গে আপস করাই শেষ কথা ছিল না, বরং অনুষ্ঠানগুলোতে মুসলিমবিদ্বেষী প্রচারের কারণেও তিনি নিরুৎসাহিত হয়েছেন।

রাশনা বলেন, যখন ভাষ্যকার ও পণ্ডিতরা মুসলমানদের বিরুদ্ধে দর্শকদের আতঙ্কিত করে তুলতেন, তখন আমি নিজের বিশ্বাস ও মূল্যবোধের সঙ্গে আপস করে অলসভাবে দাঁড়িয়ে থাকতাম।

তবে রাশনার লেখা প্রকাশ করায় এবিসি নিউজের সমালোচনা করেছেন স্কাই নিউজের ভাষ্যকার ক্রিস কেন্নি।

রাশনা দাবি করেন, স্কাই নিউজ অস্ট্রেলিয়া মসজিদের ভেতর থেকে ছবি প্রকাশ করেছে। কিন্তু স্কাই নিউজ বলছে, তারা খুনি শ্বেতাঙ্গ জঙ্গির হত্যার দৃশ্যের সরাসরি সম্প্রচারের একটি অংশ প্রচার করেছেন, মসজিদের ভেতর থেকে নয়।

এমনকি যেসব ভাষ্যকারের সাক্ষাৎকার রাশনা ফাররুককে মানসিকভাবে পীড়া দিত, তাদের নাম প্রকাশ করেছেন তিনি।

এদের মধ্যে বোরকা নিষিদ্ধের দাবি করে আসা করি বারনাডি, ইট’স ওকে টুবি হোয়াইটের পোলিন হ্যানশন এবং ব্রাউনিয়ন বিশপ রয়েছেন।

এ মুসলিম তরুণী বলেন, অস্ট্রেলিয়ায় মুসলিম ও অভিবাসীদের হয়ে প্রতিবাদকারী দর্শকদের ফোনের জবাব দিতাম আমি। কিন্তু তারা জানতেন না, ফোনের এ পাশে যে নারী তাদের সঙ্গে আলাপ করছেন, সেও তাদের মতো একজন।

‘যখন ভাষ্যকাররা দেশের প্রতিটি সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ঝাড়ছে, তখন স্টুডিওর অপর পাশের দরজায় দাঁড়িয়ে থাকতাম আমি। তারা দর্শকদের মধ্যে মেরুকরণ ও মানসিক বৈকল্য তৈরি করে যাচ্ছিলেন।’

স্কাই নিউজের ক্যানবেরার পার্লামেন্ট হাউসের একজন গণসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করতেন রাশনা ফাররুক। সেখানে তিনি স্টুডিওতে আসা অতিথিদের সহায়তা করতেন।

তিনি বলেন, আমরা যদি ক্রাইস্টচার্চের হত্যাকাণ্ডের দিকে তাকাই, তবে আমাদের গণমাধ্যমে যা ঘটেছে, তাতে কী বাস্তব জীবনের পরিণতি ফুটিয়ে তুলতে পেরেছে।

তবে স্কাই নিউজের মুখপাত্র বলেন, আমরা রাশনার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই। তার ভবিষ্যত কর্মতৎপরতায় সাফল্য কামনা করছি।