টিডিএন বাংলা ডেস্ক : গবেষণায় উঠে এসেছে প্লাস্টিক দূষণের ভয়াবহ তথ্য, পাখির ডিমে মিলল প্লাস্টিক উপাদান। পৃথিবীর আদি-অকৃত্রিম জায়গা ধরা হয় যেসব অঞ্চলকে, উত্তর মেরু সেসব জায়গার একটি। কারণ, সেখানে মানুষের পদচারণ বিরল, দূষণও কম। তবে সম্প্রতি একটি ভয়াবহ তথ্য উঠে এসেছে বিজ্ঞানীদের গবেষণায়। সেখানকার সামুদ্রিক পাখি নর্দান ফুলমারের ডিমে তাঁরা প্লাস্টিকের উপাদান পেয়েছেন।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ডের (ডব্লিউডব্লিউএফ) যুক্তরাজ্য মেরিন পলিসির প্রধান লিন্ডসে ডডস বলেন, পাখির ডিমে প্লাস্টিকের উপাদান পাওয়ার অর্থ, প্রকৃতি প্লাস্টিকে ভরে উঠেছে। এটি অত্যন্ত উদ্বেগের।

কানাডার প্রিন্স লিওপোল্ড আইল্যান্ড থেকে নর্দান ফুলমারের পাঁচটি ডিম সংগ্রহ করেন বিজ্ঞানীরা। বরফ ঢাকা উত্তর মেরুতে অবস্থিত ওই দ্বীপ। বিজ্ঞানীরা ডিম পাঁচটির একটিতে থ্যালেটস নামের একটি রাসায়নিক উপাদান পান। থ্যালেটস প্লাস্টিকে যোগ করা হয় নমনীয়তার জন্য। এটি প্রাণিদেহে স্বাভাবিক হরমোন উৎপাদন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করে। এর কারণে বন্ধ্যাত্ব, জন্মগত ত্রুটি ও অনেক বিপাকীয় রোগও হতে পারে। এ কারণে শিশুদের খেলনায় থ্যালেটসের ব্যবহার অনেক দেশেই নিষিদ্ধ।

উত্তর মেরুর কোনো পাখির ডিমে প্লাস্টিক পাওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম। বিজ্ঞানীরা তাই সতর্ক করেছেন, প্লাস্টিক দূষণের ক্ষতিকর প্রভাব পৃথিবীর আদি-অকৃত্রিম স্থানেও পৌঁছে গেছে।

ডিমে থ্যালেটস পাওয়ার পর প্রিন্স লিওপোল্ড আইল্যান্ড থেকে বিজ্ঞানীরা নর্দান ফুলমার ও কালো পায়ের কিটিওয়েক পাখির আরও কিছু ডিম সংগ্রহ করেন। এসবে এসডিপিএ ও বিজেডটি-ইউভি পাওয়া গেছে। এই দুই রাসায়নিক প্লাস্টিকে যোগ করা হয় চকচকে করার জন্য।

বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, আর্কটিক সাগরের ল্যাঙ্কাস্টার সাউন্ড এলাকায় সাগরে প্লাস্টিকের আবর্জনা থেকে থ্যালেটস মাছ, স্কুইড বা চিংড়ির শরীরে ঢুকেছে। সেখান থেকে গেছে নর্দান ফুলমারের শরীরে। গবেষকদের ধারণা, থ্যালেটস নারী পাখির পাকস্থলী থেকে রক্তসংবহনতন্ত্রে মিশেছে। তারপর তা গেছে ডিমে।