টিডিএন বাংলা ডেস্ক: হিজাব প্রগতির অন্তরায় নয়। সোশ্যাল মিডিয়াসহ ফুটবলবিশ্বে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন ইংল্যান্ডের নারী রেফারি জাওয়াহের রুবেল। গত বছরের এপ্রিল মাস থেকেই তিনি আলোচিত এক রেফারি। হিজাব পরে ফুটবল খেলা পরিচালনা করছেন এই রেফারি। আর সেই কারণে তিনি আলোচিত ও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।

ব্রিটেনের ফুটবল জগতে জাওয়াহেরকে একজন বিস্ময়কর মানুষ হিসেবে দেখা হয়। হিজাবের আড়ালে বেশ কয়েকটি পরিচয় রয়েছে তার। তিনি প্রথমত একজন নারী। দ্বিতীয় একজন কৃষাঙ্গ শরণার্থী। অতঃপর একজন মুসলিম। সবশেষে নিয়মিত হিজাব পরেই ফুটবলের মতো গতিশীল খেলায় দায়িত্ব পালনে অত্যন্ত সফল এই মহিলা রেফারি।

ব্রিটেনের তিনি প্রথম নারী রেফারি যিনি হিজাব পরে খেলা পরিচালনা করেন। ফুটবলকে প্রচণ্ডরকম ভালোবাসেন এই জাওয়াহের রুবেল। স্বপ্ন ছিল মাঠে গিয়ে খেলা পরিচালনা করার। সেই স্বপ্নপূরণে আজ তিনি সফল। অথচ যুদ্ধ কবলিত দরিদ্র দেশ সোমালিয়ার অধিবাসী হয়ে ইংল্যান্ডে এসে একজন সফল রেফারি হওয়া অকল্পনীয়।

হিজাব পরা সম্পর্কে জাওয়াহের বলেন, আমার ধর্ম আমার অস্তিত্বের অংশ এবং আমি এটাকে ভালবাসি।
সবকিছু রেখে রেফারির মতো কায়িক শ্রমে জড়িত হলেন কেন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমি নারীদের সম্পর্কে ভুল ধারণাগুলো দূর করার জন্য এখানে এসেছি। মেয়েরা ফুটবল খেলতে পারে। আবার ধর্মকে পরিপূর্ণভাবে পালন করতে পারে সেটাই জানিয়েছি আমি। আমি ধর্ম পালন করা পছন্দ করি।

যুক্তরাজ্যের অনলাইন সংবাদ মাধ্যম টেলিগ্রাফ সূত্র মতে, জাওয়াহের রুবেল ২০০৪ সালে গৃহযুদ্ধকবলিত দেশ সোমালিয়ার মোগাদিসু থেকে পিতামাতা ও ৮ ভাইয়ের সঙ্গে পালিয়ে চলে আসেন ইংল্যান্ডে। ইংল্যান্ড এসে তিনি ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামের কাছে থাকতেন। আর সেখানে ফুটবল খেলা দেখতে দেখতেই রেফারি হওয়ার স্বপ্ন তৈরি হয় তার।

যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের শিরোনামে এসেছেন জাওয়াহের। তাকে অসাধারণ যোগ্যতার রেফারি হিসাবে আখ্যা দিয়েছে ব্রিটেনের জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যমগুলো।