টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ২০১৭ সালের এপ্রিলে ভারতীয় নৌসেনার প্রাক্তন কুলভূষণ যাদবকে গুপ্তচরবৃত্ত ও সন্ত্রাসবাদের অপরাধে ফাঁসির আদেশ দিয়েছিল পাকিস্তানের সামরিক আদালত। সেই রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৭ সালের মে মাসে আন্তর্জাতিক আদালতে মুক্তির আবেদন করে ভারত। আজ ১৭ই জুলাই সেই মামলার রায় দিবে হেগের আন্তর্জাতিক আদালত। ভারতীয় সময় সন্ধে ৬.৩০ নাগাদ এ ব্যাপারে রায় দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।

সূত্রের খবর, এই রায়ের উদ্দেশ্যে পাকিস্তানের তরফে ১৩ সদস্যের একটি দল মঙ্গলবার হেগে পৌঁছে গিয়েছে। দলটির নেতৃত্বে রয়েছেন সেদেশের বিদেশ দফতরের মুখপত্র মহম্মদয় ফয়জল। অ্যাটর্নি জেনারেল আনোয়ার মনসুরও রয়েছেন এই দলে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক আদালতের তরফে জানানো হয়েছে, বিচারক আব্দুলকায়ি আহমেদ ইউসুফ রায়ের সিদ্ধান্ত পড়ে শোনাবেন।

ভারতের তরফে পাকিস্তানের মিলিটারি আদালতে ৪৮ বছর বয়স্ক কুলভূষণের বিচারেরও বিরোধিতা করা হয়। আন্তর্জাতিক আদালত ২০১৭-র ১৮ মে পাকিস্তানকে ফাঁসি না দিতে নির্দেশ দেয়।

হেগের আন্তর্জাতিক আদালত রাষ্ট্রসংঘের অংশ। ১৯৪৫-এর জুনে স্থাপন হয়েছিল। কাজ শুরু করে ১৯৪৬-এর এপ্রিলে। আন্তর্জাতিক আদালতের তরফ থেকে ফেব্রুয়ারিতে ভারত ও পাকিস্তানকে নিয়ে শুনানির বন্দোবস্ত করেছিল।

পাকিস্তান দাবি করে, ইরান থেকে প্রবেশের পর তাদের নিরাপত্তা বাহিনী বালোচিস্তান থেকে ২০১৬-র ৩ মার্চ যাদবকে গ্রেফতার করেছিল। অন্যদিকে ভারতের দাবি ইরান থেকে তাঁকে অপহরণ করা হয়েছিল। নৌবাহিনী থেকে অবসর নেওয়ার পর ব্যবসায়িক কাজে তিনি ইরান গিয়েছিলেন দাবি করেছে ভারত। পাকিস্তানের তরফে ভারতের এই দাবি উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

ভারতের তরফে দুটি বিষয়ের ওপর জোর দেওয়া হয়েছিল। একটি হল ভিয়েনা চুক্তি। আর অপরটি হল যাদবের ফাঁসির আদেশ রদ করা। পাকিস্তানের তরফে বলা হয় যাদব ছিলেন গুপ্তচর। তিনি কোনওভাবেই ব্যবসায়ী ছিলেন না।