টিডিএন বাংলা ডেস্ক : নবদিগন্তের পথে তুরস্ক, এরদোগানের নির্বাচনী জনসভায় জনতার বাঁধভাঙ্গা ঢেউ। দেখা যাচ্ছে, সকল জনসভায় বিপুল মানুষের ভিড়। তাহলে গোটা তুরস্কে এরদোগানের প্রভাব আরও কি বাড়ছে? জনসভার ছবি কিন্তু সেই কথা বলছে।

উল্লেখ্য, তুরস্কে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। আগামী ২৪ জুন নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২০১৯ সালের নভেম্বরে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,  প্রেসিডেন্টের নির্বাহী আদেশে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরদোগানের ঘোষণার ফলে নির্ধারিত সময়ের প্রায় এক বছর আগেই তা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, দেশটির বিরোধী দল ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টির (এমএইচপি) প্রধান ডেভলেত বাচেলির প্রস্তাব অনুসারে আগাম নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন এরদোগান। এ নির্বাচনের পর দেশটির শাসন ব্যবস্থায় প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা আরও বৃদ্ধি পাবে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, পুরনো পদ্ধতির শাসন ব্যবস্থা ছিল দূর্বল। তবে আগামী নির্বাচনের পর সরকার ও প্রেসিডেন্ট একসঙ্গে কাজ করবে। তুরস্কের নির্বাচন এমন সময় ঘোষণা দিয়েছেন যখন এরদোগান সরকারের সফল আফরিন অভিযান শেষ হয়েছে। ওই অভিযানের পর পিকেকেসহ সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সম্ভাব্য হামলার ঝুঁকি থেকে অনেকটা নিরাপদ হয়েছে। এছাড়াও তুরস্কের এককভাবে পরিচালিত এ অভিযান আন্তর্জাতিক বিশ্বে দেশটির গুরুত্ব আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।এটি এরদোগানের জন্য আগামী নির্বাচনে বিশেষ সহায়ক হবে।