টিডিএন বাংলা ডেস্ক : শ্বেত ভালুকের যন্ত্রনায় জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। যার ফলে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। ঘটনাটি রাশিয়ার একটি প্রত্যন্ত রাজ্য নোভায়া যেমালয়া দ্বীপের। নোভায়া যেমালয়া দ্বীপের বসবাসকারী কর্মকর্তারা বলছেন, এলাকাটিতে কয়েক হাজার মানুষ বসবাস করেন। কিন্তু নিত‍্যদিনের ভালুকের যন্ত্রনার শিকার এলাকাবাসী। ভালুকগুলো প্রতিদিন এলাকায় আসতে শুরু করার পর অনেক মানুষ হামলা শিকার হয়েছেন।

জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে শিকার প্রাণীগুলোর মধ্যে রয়েছে শ্বেত ভালুক। খাবারের খোজে প্রায়ই এসব ভালুক লোকালয়ে হানা দেয়। এসব ভালুককে বিলুপ্তপ্রায় প্রাণী বলে তালিকাভুক্ত করেছে রাশিয়া। তাই শ্বেত ভালুক শিকার করা নিষিদ্ধ। কর্মকর্তারা বলছেন, পুলিশ যেসব পেট্রোল বা সিগন্যাল ব্যবহার করে এসব ভালুক তাড়িয়ে থাকে, তা থেকে ভীতি কেটে গেছে এসব প্রাণীর। ফলে এগুলো সামলাতে আরো কঠোর ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

তারা বলছেন, ভালুকগুলোকে তাড়ানোর অন্যসব পন্থা যদি ব্যর্থ হয়, তাহলে তাদের সামনে একটি পদ্ধতিই খোলা থাকবে। তা হচ্ছে, এগুলোর মধ্য থেকে একটি অংশকে মেরে ফেলা। ওই এলাকার মুল বসতি যেখানে, সেই বেলুশা গুবায় ৫২টি ভালুক দেখা গেছে। তাদের মধ্যে ছয় থেকে দশটি সবসময়েই সেখানে থাকছে।

স্থানীয় প্রশাসনের প্রধান ভিগানশা মুসিন বলেছেন, পাঁচটির বেশি ভালুক রয়েছে স্থানীয় সামরিক ঘাটিতে, যেখানে বিমান বাহিনী এবং বিমান প্রতিরক্ষার বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। ”১৯৮৩ সাল থেকে নোভায়া যেমালয়াতে আমি রয়েছে, কিন্তু এভাবে এতো বেশি মাত্রায় ভালুকদের আসার ঘটনা দেখিনি।” তার সহকারী জানিয়েছেন, এ কারণে বসতিগুলোর স্বাভাবিক জীবনযাপন ব্যাহত হয়ে পড়েছে।

”মানুষজন ভীত হয়ে পড়েছে, তাদের বাড়িঘর ছাড়তেও ভয় পাচ্ছে। তাদের প্রতিদিনকার রুটিন ভেঙ্গে পড়েছে, অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের স্কুল বা কিন্ডারগার্টেনে পাঠাচ্ছেন না।” বলছেন স্থানীয় প্রশাসনের ডেপুটি অ্যালেক্সান্ডার মিনায়েভ।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে উত্তর মেরুর সাগরের বরফ গলে কমে যাচ্ছে, ফলে মেরু অঞ্চলে থাকা শ্বেত ভালুকগুলো তাদের শিকারের অভ্যাস পাল্টাতে বাধ্য হচ্ছে। তারা বরফের রাজ্য থেকে বেরিয়ে ভূমিতে এসে খাবার খুঁজতে বাধ্য হচ্ছে, যা মানুষের সঙ্গে তাদের সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির সম্ভাবনা তৈরি করছে।

২০১৬ সালে পাঁচজন রাশিয়ান বৈজ্ঞানিক ট্রোনোয় দ্বীপের একটি প্রত্যন্ত আবহাওয়া স্টেশনে বেশ কয়েকদিন শ্বেত ভালুক দ্বারা অবরুদ্ধ থাকতে বাধ্য হয়েছিলেন।