টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সরকার বিরোধী লাগাতার বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভের রূপ ধারণ করেছে ভেনেজুয়েলা। গত সোমবার বিরোধী নেতা গুয়াইদো সেনাবাহিনীর পাশে দাঁড়িয়ে প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোকে ‘উৎখাত’ করার ঘোষণা দেয়ার পরপরই তার হাজার হাজার সমর্থকরা রাজপথে নেমে আসে।

রাজধানী কারাকাসসহ বিভিন্ন শহরে সরকারবিরোধীদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ চলছে। গুলিতে এক নারী বিক্ষোভকারীর মৃত্যু ও অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে বলে বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছে। তবে ব্যাপক গণ আন্দোলনের মধ্যেও পদত্যাগে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন মাদুরো।

সোমবার থেকে নতুন মাত্রার বিক্ষোভ শুরু হলেও এটি ব্যাপক গণ আন্দোলনের রূপ ধারণ করে বুধবার। এদিন উত্তাল জনতাকে সামাল দিতে টিয়ার গ্যাস ও গরম পানি ছোড়ে দেশটির সেনাবাহিনী। বিক্ষোভকারীরা পাল্টা হামলা চালিয়ে বিভিন্ন যানবাহনে অগ্নিসংযোগ ও সরকারি প্রতিষ্ঠানে ধ্বংসযজ্ঞ চালায়।

ব্যাপক হারে ইটপাটকেল ও পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে তারা। বিক্ষোভকারী নিহতের ঘটনায় দায়ীদের খুঁজে বের করার আহ্বান জানিয়েছেন আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া দেশটির স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট গুয়াইদো। গতকাল বৃহস্পতিবার সরকারি চাকরিজীবীদেরও ধর্মঘটে সামিল হবার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

নির্বাচনী কারচুপির অভিযোগ আর অর্থনৈতিক সংকটের বিরুদ্ধে এ বছরের শুরুতে ভেনেজুয়েলায় বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভের সুযোগে ২৩ জানুয়ারি নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন গুয়াইদো। সোমবার মধ্যরাতে এক ভিডিও বার্তায় আকস্মিক অভ্যুত্থানের ঘোষণা দেন তিনি, যা তার সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে।

এদিকে, গুয়াইদোর এই অভ্যুত্থানে সমর্থন ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও বলেছেন, আগামী দিনগুলোতে দেশটির পরিস্থিতি খুব সংকটজনক অবস্থার দিকে মোড় নেবে। তাই মাদুরোর প্রতি দায়িত্বশীল আচরণের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।