টিডিএন বাংলা ডেস্ক: পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রচারে এসে হাইলাকান্দিতে এনআরসি-ছুট ৪০ লক্ষ নাগরিকের অস্তিত্ব সঙ্কটের কথা জনসমক্ষে তুলে ধরলেন এআইইউডিএফ সুপ্রিমো মাওলানা বদরুদ্দিন আজমাল। হাইলাকান্দির মনাছড়া ব্লক, মাটিজুরি, বাহাদুরপুর, ভাটিকোপায় আয়োজিত পঞ্চায়েত নির্বাচনী একাধিক জনসভায় বক্তব্য রাখেন তিনি। বুধবার রাতে পরপর একাধিক নির্বাচনী জনসভায় দলের জেলা সভাপতি আফজল হোসেন লস্করের সভাপতিত্বে আজমল কার্যত এনআরসি সমস্যাকে গুরুত্ব দিয়ে বক্তব্য রাখেন।

তিনি বলেন ভোটের দিকে জনতার মাথা ঘুরিয়ে দিতে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের চক্রান্তে এ সময়ে পঞ্চায়েত নির্বাচন ঘোষণা করা হয়েছে। যা আগামী ১৫ ডিসেম্বর এনআরসির দাবী-আপত্তির শেষ দিনের পর ঘোষণা করলে কোনো আপত্তি ছিল না। মনাছড়া ব্লকের সামনে ও মাটিজুরি জনসভায় দাঁড়িয়ে আজমল বলেন, শাসক বিজেপি মুসলমান সমাজের শত্রু, মা-বোনের ইজ্জতের শত্রু, দেশের সংবিধানে শত্রু। বিস্ফোরক এ মন্তব্য করে ইউডিএফ সুপ্রিমো বলেন, মুসলমানদের রাষ্ট্রচ্যুত করার চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে এই সরকার। রাজ্যে বসবাসরত মহিলাদের স্বার্থে এনআরসিতে পঞ্চায়েত নথি বৈধ করতে জমিয়ত উলামার তরফে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করা হয়, এবং এর পক্ষে রায় আসে। অন্যথায় কেঁদে কূলকিনারা হতো না। এআইইউডিএফ সুপ্রিমো উপরোক্ত অভিমত প্রকাশ করে বিজেপির যেমন কঠোর সমালোচনা করেন, তেমনি কংগ্রেস দলের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈর কাজকর্মের ও তীব্র সমালোচনা করেছেন।তিনি বলেন গগৈর কার্যকালে অনুমতিপ্রাপ্ত ডিটেনশন ক্যাম্প গুলোর অবস্থা খুবই শোচনীয় ছিল।তার দলের বিধায়করা এসব ডিটেনশন ক্যাম্প পরিদর্শন করে প্রাপ্ত অভিযোগ দিল্লিতে জানিয়েও কোনো সুফল মেলেনি। কংগ্রেস ও গেরুয়া দল বিজেপি থেকে দূরত্ব বজায় রেখে আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে ইউডিএফ প্রার্থীদের জয়ী করতে আহ্বান জানান তিনি।

সরকার চাতুরতা অবলম্বন করে পঞ্চায়েত নির্বাচন ঘোষণা করে রাজ্যবাসীর মন ঘুড়িয়ে দিয়েছে।নাগরিকত্ব না থাকলে নির্বাচন কতটুকু কাজে আসবে। তাই নির্বাচনে জড়িত থাকার পাশাপাশি এনআরসি নিয়ে সচেতন হয়ে ভুল ভ্রান্তি শুদ্ধ করতে প্রতিটি লোকের প্রতি আহ্বান জানান সাংসদ আজমল। ওইদিন তিনি বিজেপির কড়া সমালোচনা করে ভোটে সমুচিত জবাব দিতে ও গ্রামাঞ্চলের উন্নয়নে এগিয়ে আসতে বলেন। তিনি বলেন ইউডিএফ দল শুধু মুসলমানদের নয়, সব জনগোষ্ঠীর দল ইউডিএফ। এখানে কোনো বৈষম্য নেই। সবার সমান অধিকার ও সম-বিকাশের লক্ষ্যে কাজ করছে তার দল।

এদিকে সংসদ রাধেশ্যাম বিশ্বাস বিজেপি ও কংগ্রেসের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, এরা জাতির উন্নয়ন চায় না। তিনি দলীয় সব প্রার্থীকে ভোট দিয়ে জনসেবাকে আরও প্রগতির দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান। হাইলাকান্দির বিধায়ক আনোয়ার হোসেন লস্কর স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা এবং প্রাক্তন মন্ত্রী গৌতম রায় ও রাহুল রায়ের কঠোর সমালোচনা করার পাশাপাশি উন্নয়নের খতিয়ান দিয়ে দলীয় প্রার্থীদের নির্বাচিত করার আহ্বান জানান। বিধায়ক সুজাম উদ্দিন লস্কর অগপ ও কংগ্রেসের তীব্র সমালোচনা করে জেলা পরিষদ এবং ইউডিএফ এর দখলে আনতে সবাইকে ময়দানে কাজ করার আহ্বান জানান। দলের উপ সভাপতি মাওলানা আব্দুল কাদির, আব্দুল করিম সাজু, হাইলাকান্দি জেলা এআইইউডিএফ এর সাধারণ সম্পাদক আবু হোসেন চৌধুরী, জাহিরুদ্দিন সহ হাইলাকান্দি জেলা স্তরে বিভিন্ন কর্মকর্তা তাদের বক্তব্যে দলীয় প্রার্থীদের ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।