টিডিএন বাংলা ডেস্ক : বাচ্চা থেকে বুড়ো, সেলফি নেশায় বুঁদ সকলেই। এ নেশা এতটাই ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, কখন কোথায় সেলফি তোলা উচিৎ আর কোথায় তোলা উচিৎ নয় সে বোধবুদ্ধিটুকুও লোপ পেতে বসেছে।

তারই প্রকৃষ্ট আরেকটি উদাহরণ দেখল ভারত। বুধবার সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডুর জামাই নন্দমুরি হরিকৃষ্ণ। ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তার মরদেহ। সেখানে তার মরদেহ সামনে রেখে দিব্যি সেলফি তুলতে লেগে গেলেন হাসপাতালের চার কর্মী।

এ কর্মের খেসারতও দিতে হয়েছে তাদের। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ওই চার কর্মীকে বরখাস্ত করেছে। সেলফিতে দেখা যাচ্ছে, এক ওয়ার্ড বয় সেলফিটি তুলছেন। পিছনে বেডে প্রায় উলঙ্গ ও মৃত অবস্থায় পড়ে নন্দমুরি। দুই নার্স ও এক নারী কর্মী ক্যামেরার দিকে হাসিমুখে তাকিয়ে আছেন।

নন্দমুরির মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা পরই সেলফিটি তোলা। শুক্রবার সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ছবি ভাইরাল হতেই ওঠে সমালোচনার ঝড়। নন্দমুরি হরিকৃষ্ণ রাজ্যসভার সাংসদ ও অন্ধ্রপ্রদেশের মন্ত্রী ছিলেন।