টিডিএন বাংলা ডেস্ক: কিছু দিন আগে অমর্ত্য সেন কলকাতা এসে বলেছিলেন জয় শ্রীরাম’ এখন মানুষ মারার কাজে ব‍্যবহার করা হচ্ছে। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ”কলকাতা আফটার ইনডিপেনডেন্সি” এ পার্সোন্যাল মিরর শীর্ষক আলোচনা চক্রে যোগদান করে এমন মন্তব্য করেছিলেন অর্থনীতিবিদ ড. অমর্ত্য সেন। তার পরেই অমর্ত্য সেনের সেই বক্তব্যের হোর্ডিং কলকাতার ব‍্যস্ততম রাস্তায় রাস্তায় ঝূলছিল। এমনকি মিন্টোপার্কের মুখেই ঝুলছিল ভুবনবিখ‍্যাত তার্কিক তথা অর্থনীতিবিদ অমর্ত‍্য সেনের সেই বিস্ফোরক মন্তব্য। এবার কলকাতার পর সেই বক্তব্যের হোর্ডিং ঝুলছে রায়গঞ্জেও।

রায়গঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকায় নাগরিক মঞ্চের পক্ষ থেকে অমর্ত্য সেনের এই পোস্টটি ব্যানারে ঝুলতে দেখা যাচ্ছে। পথ চলতি মানুষ রীতিমতো দাঁড়িয়ে পড়ছে এই ব্যানারের লেখা। এই ফ্লেক্স বা ব্যানারকে ঘিরে রায়গঞ্জ তথা উত্তর দিনাজপুর জেলায় শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর।

জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তথা রায়গঞ্জ পুরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাস জানিয়েছেন, মহান ব্যক্তিত্ব নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনের এই উদ্ধৃতি যারাই ফ্লেক্স বা ব্যানার আকারে উপাস্থাপনা করেছেন সেই নাগরিক সমাজকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। তিনি এও বলেন, আজকের সময়ে অমর্ত্য সেনের এই বক্তব্য খুবই প্রাসঙ্গিক। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে এর চাইতে ভালো কথা আর কিছু হয় না। বিজেপি কেন বিষয়টি নিয়ে নিজেরা গায়ে মাখাচ্ছে।

উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপি সভাপতি নির্মল দাম সরাসরি অমর্ত্য সেনের সংস্কৃতি নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন। তাঁর অভিযোগ, অমর্ত্য সেনের কৈশোর ও যৌবনকাল বাংলাতেই কাটেনি। তিনি বাংলার সংস্কৃতি সম্পর্কে না জেনে এ ধরনের মন্তব্য করেছেন। আমরা অমর্ত্য সেনের এই উদ্ধৃতির তীব্র নিন্দা করছি। তবে রাতের অন্ধকারে তৃণমূল কংগ্রেস অমর্ত্য সেনের উদ্ধৃতিকে ব্যানার তৈরি করে শহরে লাগিয়েছে বলে অভিযোগ করেন নির্মলবাবু।

অপরদিকে জেলা কংগ্রেস সভাপতি তথা রায়গঞ্জের বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্ত অমর্ত্য সেনের এই মন্তব্যকে সম্পূর্ণভাবে সমর্থন করে বলেন, এখন জয় শ্রীরাম স্লোগান শুনলে আমাদের ভয় লাগে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বিরুদ্ধে বিজেপি এই স্লোগান দেয়।