টিডিএন বাংলা ডেস্ক : লোকসভায় তালাক বিল বিতর্কে অংশ নিয়ে বিজেপি সরকারের উদ্দেশ্য ভালো নয় বলে মন্তব্য করেছেন মজলিশে ইত্তেহাদুল মুসলিমিন সুপ্রিমো প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়েসী। তিনি বলেন, ‘আমি মুসলিমদের পক্ষে বলতে চাই যে, দেশের সকল মুসলিম নারী এই বিলের বিরোধিতা করছেন। সেজন্য আমি এই বিলটির বিরুদ্ধে, কারণ এটি দেশের সংবিধানবিরোধী।’

তিনি বলেন, ‘যদি হিন্দু সমাজের কেউ তালাক দেয় তাঁর জন্য এক বছরের সাজার ব্যবস্থা। কিন্তু মুসলিমদের জন্য তিন বছরের সাজার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে কেন?’

ওয়েসী বলেন, গাড়ি দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে অভিযুক্তকে দুই বছরের সাজার ব্যবস্থা আছে। কিন্তু তিন তালাকের জন্য তিন বছরের সাজার ব্যবস্থা করা হচ্ছে কেন? সমকামিতায় ফৌজদারি মামলা না হলেও তিন তালাকে সাজার ব্যবস্থা কেন?’

ওয়েসী বলেন, ‘ইসলামে বিয়ে একটি চুক্তি। সেজন্য আইন করা যেতে পারে তিন তালাক দিলে তাকে তিনগুণ দেনমোহর দিতে  হবে। কিন্তু আপনারা নারীদের ভালোবাসেন না, আপনাদের (সরকার) উদ্দেশ্য শুধু কারাগারে পাঠানো।’

তিনি বলেন, ‘দেশে ৮৪ শতাংশ দশ বছর বয়সী হিন্দু মেয়েদের বিয়ে হচ্ছে, এর বিরুদ্ধে আইন  থাকা সত্ত্বেও তা বন্ধ হচ্ছে না। চাপ সৃষ্টি করে জবরদস্তির মধ্যে আমরা আমাদের ধর্ম ছেড়ে দেবো না। আর যতদিন পৃথিবী থাকবে, ততদিন আমরা মুসলিম হিসেবে শরীয়া অনুযায়ী চলতে থাকব, সেজন্য আমরা এই বিল প্রত্যাখ্যান করছি।’

উল্লেখ্য, ঠিক একদিন পরেই ওয়েসীর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান রয়েছে হায়দরাবাদে। এরপরও তিনি তালাক বিলের বিরুদ্ধে অংশ নিতে দিল্লি পৌঁছান। তাঁর এহেন কর্মকাণ্ডে দেশজুড়ে প্রশংসা শুরু হয়েছে।

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : লোকসভায় তালাক বিল বিতর্কে অংশ নিয়ে বিজেপি সরকারের উদ্দেশ্য ভালো নয় বলে মন্তব্য করেছেন মজলিশে ইত্তেহাদুল মুসলিমিন সুপ্রিমো প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়েসী। তিনি বলেন, ‘আমি মুসলিমদের পক্ষে বলতে চাই যে, দেশের সকল মুসলিম নারী এই বিলের বিরোধিতা করছেন। সেজন্য আমি এই বিলটির বিরুদ্ধে, কারণ এটি দেশের সংবিধানবিরোধী।’

তিনি বলেন, ‘যদি হিন্দু সমাজের কেউ তালাক দেয় তাঁর জন্য এক বছরের সাজার ব্যবস্থা। কিন্তু মুসলিমদের জন্য তিন বছরের সাজার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে কেন?’

ওয়েসী বলেন, গাড়ি দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে অভিযুক্তকে দুই বছরের সাজার ব্যবস্থা আছে। কিন্তু তিন তালাকের জন্য তিন বছরের সাজার ব্যবস্থা করা হচ্ছে কেন? সমকামিতায় ফৌজদারি মামলা না হলেও তিন তালাকে সাজার ব্যবস্থা কেন?’

ওয়েসী বলেন, ‘ইসলামে বিয়ে একটি চুক্তি। সেজন্য আইন করা যেতে পারে তিন তালাক দিলে তাকে তিনগুণ দেনমোহর দিতে  হবে। কিন্তু আপনারা নারীদের ভালোবাসেন না, আপনাদের (সরকার) উদ্দেশ্য শুধু কারাগারে পাঠানো।’

তিনি বলেন, ‘দেশে ৮৪ শতাংশ দশ বছর বয়সী হিন্দু মেয়েদের বিয়ে হচ্ছে, এর বিরুদ্ধে আইন  থাকা সত্ত্বেও তা বন্ধ হচ্ছে না। চাপ সৃষ্টি করে জবরদস্তির মধ্যে আমরা আমাদের ধর্ম ছেড়ে দেবো না। আর যতদিন পৃথিবী থাকবে, ততদিন আমরা মুসলিম হিসেবে শরীয়া অনুযায়ী চলতে থাকব, সেজন্য আমরা এই বিল প্রত্যাখ্যান করছি।’

উল্লেখ্য, ঠিক একদিন পরেই ওয়েসীর মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান রয়েছে হায়দরাবাদে। এরপরও তিনি তালাক বিলের বিরুদ্ধে অংশ নিতে দিল্লি পৌঁছান। তাঁর এহেন কর্মকাণ্ডে দেশজুড়ে প্রশংসা শুরু হয়েছে।