টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বাঙালি আন্দোলন করে কাজ হলোনা। আসামে এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছিল তৃণমূল। কিন্তু ফলাফল বলছে অসমবাসীরা তৃণমূল কংগ্রেসকে কার্যত ছুড়ে ফেলে দিয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার আসামে এনআরসি লাগু করার সময়ে সব চেয়ে বেশি সরব হয় তৃণমূল কংগ্রেস। চরম বিরোধিতা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এনআরসি-কে হাতিয়ার করেই সেখানে লড়াইয়ে নেমেছিল ঘাসফুল। কিন্তু তৃণমূলের বাঙালি-বাঙালি কান্না কানেই তুলল না বাঙালি। শতাব্দী রায়, মমতা ঠাকুর, সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরীদের মতো তৃণমূলের প্রভাবশালী নেতারা ভোট প্রচারে গিয়েছিলেন। কিন্তু ভোটের ফলে দেখা গেল, বাঙালিরাই তৃণমূল কংগ্রেসকে বয়কট করল।

জানা গেছে,তৃণমূল কংগ্রেস অসম পঞ্চায়েত নির্বাচনে মূলত বাঙালি-প্রধান এলাকাগুলিতেই প্রার্থী দেয়। মোট ১০৭টি কেন্দ্রে ঘাসফুলের প্রার্থী ছিল। কিন্তু কোথাওই জয়ের কাছাকাছিও পৌঁছতে পারেনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল।
ফল নিয়ে চিন্তিত তৃণমূল শিবির। কিন্তু কেন এই খারাপ ফল? রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, এনআরসি নিয়ে আন্দোলন হলেও আসামে দুর্বল সংগঠনের জন্য ভোটে তার প্রভাব পড়েনি।