টিডিএন বাংলা ডেস্ক: অসমে কংগ্রেস জমানার দাপুটে মন্ত্রী গৌতম রায়ও এখন বিদেশি? তার পৌত্র হিমব্রত রায়ও নাকি সন্দেহজনক নাগরিক! শুনতে আশ্চর্য লাগলেও অভিযোগ কিন্তু এমনটাই। রাষ্ট্রীয় নাগরিক পঞ্জি বা এন আর সি নবায়নের যে চূড়ান্ত প্রক্রিয়া চলছে তাতে খসড়ায় নাম থাকলেও প্রাক্তন মন্ত্রী গৌতম রায় ও তার পৌত্রের নাগরিকত্ব নিয়ে অভিযোগ দায়ের করেছেন এক ব্যক্তি।

এনআরসির নামে বাঙালি হিন্দু মুসলমানকে হেনস্থা করার অভিযোগ উঠছে প্রথম থেকেই। কিন্তু বেছে বেছে বাঙালি হিন্দুদের নাগরিকত্ব নিয়েও এখন ব্যাপকভাবে অভিযোগ পড়তে শুরু করেছে। নির্বাচন পর্ব মিটে যাওয়ার পরপরই বেশ কয়েক হাজার বাঙালি হিন্দু কে বিদেশী নোটিশ ধরানো হয়েছে।

তার অন্য উদাহরণ অসমের দীর্ঘ দিনের মন্ত্রী প্রবীণ কংগ্রেস নেতা গৌতম রায়ের নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলা। অভিযোগ উঠছে একাংশ লোক সঠিক এনআরসি তৈরিতে বাধা দান করতে পরিকল্পিতভাবে ষড়যন্ত্র করে চলেছে। এনআরসি খসড়ায় নাম রয়েছে এমন কয়েক লক্ষ মানুষের নামে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। অধিকাংশ অভিযোগপত্রে অভিযোগকারীর ঠিকানা ফোন নম্বর এমনকি ভোটার কার্ডের প্রতিলিপি নেই। অথচ অভিযোগের ক্ষেত্রে এসব বাধ্যতামূলক।

অথচ এসব নিয়ে কোন গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না। আর অভিযোগে শুনানির জন্য এবং নিজের নাগরিকত্ব পুনরায় প্রমাণ করতে সাধারণ মানুষদের বারবার ছুটে ছুটে যেতে হচ্ছে রাজ্যের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। গৌতম রায় তিন দশক ধরে অসমের বিধায়ক ও মন্ত্রী। তার পুত্র প্রাক্তন বিধায়ক রাহুল রায়ের পুত্র ৬ বছর বয়সের হিমব্রত রায়ের নাগরিকত্ব নিয়ে এখন অভিযোগ উঠেছে। ১৯৭২ সাল থেকে অসম বিধানসভার বিধায়ক থাকা সন্তোষ রায়ের বংশধরদের যদি নাগরিকত্ব নিয়ে হেনস্থার মুখে পড়তে হয় তাহলে সাধারণ মানুষের কি হবে?