টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ৭৪ বছর বয়সে যমজ সন্তানের জন্ম দিয়ে রেকর্ড গড়লেন অন্ধ্রপ্রদেশের এক মহিলা। বিয়ের পর থেকে মা হওয়ার আশা মনের মধ্যে জাগলেও মা হতে পারেন নি তিনি। ওই মহিলার নাম মানগায়াম্মা। ১৯৬২ সালের ২২ মার্চ বিয়ে হয়েছিল। তাঁর পরে মা হতে চেয়েও কখনও মা হতে পারেন নি। বিয়ের ৫৪ বছর পর ৭৪ বছর বয়সে মা হলেন ইয়ারামাত্তি রাজা রাওয়ের স্ত্রী। এই বিস্ময়কর ঘটনাটি ঘটেছে অন্ধ্রপ্রদেশের গোদাবরি জেলার গুন্টুরের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে। চিকিৎসকরা এই বিশেষ প্রসবের জন্য সব ধরণের ব্যবস্থা করেছিলেন৷ এটা চিকিৎসকরদের মতে বিশ্ব রেকর্ড৷ নেলাপারতিপাদু -র ইস্ট গোদাবরী জেলার মানগায়াম্মা এই বিরল ঘটনা ঘটালেন৷ ১৯৬২ সালের ২২ মার্চ এঁদের বিয়ে হয়েছিল৷ প্রথম থেকেই সন্তান চেয়েছিলেন তাঁরা কিন্তু মানগায়াম্মা কখনই মা হতে পারেননি৷

সূত্রের খবর, এঁদের বাড়ির কাছেই থাকতেন আরও এক ভদ্রমহিলা৷ তিনি ৫৫ বছর বয়সে IVF-র মাধ্যমে সন্তানের জন্ম দেন৷ এর থেকেই উদ্বুদ্ধ হন মানগায়াম্মা৷ তিনি ও তাঁর স্বামী অহল্যা নার্সিংহোমে যান৷ সেখানেই আইভিএফ এক্সপার্ট ডক্টর সনক্কায়ালা উমাশংকর ভদ্রমহিলার স্বামীর স্পার্ম কালেক্ট করেন৷ তারপর আইভিএফে সফল ভাবে নিষিক্ত হওয়া ডিম্বানু মানগায়াম্মার ওভারিতে প্রতিস্থাপন করে দেন৷ পুরো প্রেগন্যান্সি -র সময়েই তিনি চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে থাকতেন৷ সিজারিয়ান পদ্ধতিতে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন মানগায়ম্মা৷ এটা পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি বয়সে মা হওয়ার ঘটনার তালিকায় থাকবে এমনটাই জানিয়েছেন সফল চিকিৎসক৷