টিডিএন বাংলা ডেস্ক: প্রথম থেকে বাধ সেধেছিলেন শীলা দিক্ষিত। দিল্লিতে আপের সঙ্গে জোট যাতে না হয়, তার জন্য চেষ্টার কসুর করেননি তিনি। বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করেন শরদ পাওয়ার। তাতেও কোনো লাভ হল না। শেষপর্যন্ত আপের সঙ্গে দিল্লিতে কংগ্রেসের জোট হল না। ৭ আসনের প্রার্থী দেবে কংগ্রেস। আপ ইতিমধ্যে ৬ আসনে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে।

দিল্লিতে ৭ লোকসভা আসনের জন্য লড়াইয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিলেন রাহুল গান্ধী। এবার নির্বাচনে আম আদমি পার্টি সঙ্গে কোনও আসন সমঝোতায় যাচ্ছে না কংগ্রেস। শনিবার রাতে দিল্লি কংগ্রেসের প্রধান শীলা দিক্ষিতের বাড়িতে কংগ্রেস নেতাদের একটি বৈঠক হয়। সেখানেই আপ-এর সঙ্গে কোনও জোট না করার সিদ্ধান্ত হয়ে যায়।

আপ-এর উত্থানেই দিল্লির গদি ছাড়তে হয় শীলা দিক্ষিতকে। সম্প্রতি তিনি চিঠি লিখে রাহুল গান্ধী ও সোনিয়া গান্ধীকে জানিয়ে দেন তিনি আপ-এর সঙ্গে কোনও আসন সমঝোতা চান না। কারণ তা করলে তা ভবিষ্যতে প্রবল ক্ষতি করবে দলের। তবে আপ-এর সঙ্গে জোট চেয়েছিলেন দিল্লির অন্যান্য অনেক নেতা।

দিল্লিতে আপ-এর সঙ্গে জোট জটিলতা তৈরি হওয়ায় গোটা বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করেন শরদ পাওয়ার। গত ১৯ মার্চ আপ নেতা সঞ্জয় সিংয়ের সঙ্গে কথা বলেন পাওয়ার। তাতেও কোনও সমাধান সূত্র বেরিয়ে আসেনি। সূত্রের খবর দিল্লিতে কংগ্রেসকে একটি মাত্র আসন দিতে চেয়েছিল আপ। কিন্তু কংগ্রেস চেয়েছিল ৩টি আসন। এনিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সমস্যার সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি দেখে আপ প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল ঘোষণা করে দেন, কংগ্রেসকে বোঝাতে গিয়ে তিনি ক্লান্ত। এর পরেই কংগ্রেসের এই সিদ্ধান্ত।