টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিহার ও অসমের বন‍্যা পরিস্থিতি ক্রমশই আরও ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। উত্তর পূর্ব ভারতের রাজ‍্য গুলি বন‍্যার ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেই এখনও পড়ে রয়েছে। বন‍্যার ভয়াবহতার কারণে মৃতের সংখ্যাও বেড়েই চলেছে। ইতোমধ্যে বন‍্যায় দুই রাজ্যজুড়ে প্রাণ হারিয়েছেন মোট ১৭০ জন মানুষ। সোমবার বিহারের মুজাফ্‌ফরপুরে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। যার জেরে বিহারে এখন পর্যন্ত বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০৪ জন।

অন্যদিকে অসমে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। যার জেরে অসমে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ৬৬ জন। পাশাপাশি অসমের বন্যার জেরে ইতোমধ্যে কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানে ১৬টি গন্ডার সহ মোট ১৮৭টি প্রাণী মারা গেছে বেল বনদফতর সূত্রে খবর।

দুই রাজ্যে ঘরছাড়া আরও ১ কোটি ৭ লক্ষ মানুষ। বিহারে ১২টি জেলা বন্যার কবলে। যার জেরে ঘরছাড়া প্রায় ৭৬ লক্ষ ৮৫ হাজার মানুষ। অন্যদিকে অসমে প্রায় ৩০ লক্ষ ৫৫ হাজার মানুষ বন্যার জেরে ঘরছাড়া। দুই রাজ্য জুড়ে এখন পর্যন্ত প্রায় ৯৬ লক্ষ ৮৯০ জন বন্যাদূর্গত মানুষ ঠাঁই নিয়েছেন মোট ৭৫৭টি ত্রাণ শিবিরে। দুই রাজ্যজুড়ে বন্যায় জলের তলায় মোট ২ হাজার ২৮৩টি গ্রাম। ভেসে গেছে প্রায় ১ কোটি ১৪ লক্ষ হেক্টর জমির ফসল।
নেপাল ও তরাই অঞ্চলে অবিরাম বর্ষণের কারণেই বিহারের বন্যাপরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। কোশি, মহানদী, কমলা বালান, বাগমতীতে এখন বিপদসীমার উপর দিয়ে জল বইছে। বীরপুর ব্যারেজের জলস্তরও ক্রমে বাড়ছে। মুজফ্‌ফরপুর, দ্বারভাঙা ও পূর্ণিয়াতেও ঢুকে পড়েছে বন্যার জল।

বিহারের বিপর্যয় মোকাবিলা মন্ত্রী লক্ষ্মীশ্বর রাই জানান,ত্রাণ ও উদ্ধারকাজ অব্যাহত রয়েছে। বন্যাদুর্গতদের উদ্ধারে হেলিকপ্টারও ব্যবহার করা হচ্ছে।