টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ২০১৬ সালে বিহারে সব ধরনের মদের উৎপাদন, সংরক্ষণ, অন্য রাজ্যে নিয়ে যাওয়া, বিক্রি বা খাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। জার ফলে প্রতিবাদে সেই সময় থেকে ২ লক্ষ মামলা হয়েছে পাটনা হাইকোর্টে। যা নিয়ে বেশ চিন্তিত হাইকোর্ট। উদ্বেগ প্রকাশ করে হাইকোর্ট জানিয়েছে যে নিষেধাজ্ঞা–সংক্রান্ত ২ লক্ষ মামলা বিচারাধীন। হাইকোর্ট জানিয়েছে রাজ্যে মদ নিষেধাজ্ঞার ফলে যে সকল মামলা হয়েছে, সেগুলির মোকাবিলা করার জন্য বিহার সরকারকে জবাব তৈরি করে তা পেশ করতে হবে।

রাজ্যে মদ নিষেধাজ্ঞার কারণে যে সমস্ত বিচারাধীন মামলাগুলি রয়েছে, তার মোকাবিলা রাজ্য কিভাবে করবে, তার বিশদ বিবরণ সরকারের কাছে বৃহস্পতিবার চায় হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের বিচারপতি সঞ্জয় করোল ও দীনেশ কুমার সিং। শুক্রবার এই বিষয়টি শুনানির জন্য প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হয়। ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে যে এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা সংক্রান্ত মামলার কীভাবে দ্রুত নিষ্পত্তি হয় তা দেখার দায়িত্ব রাজ্য সরকারের। বিহার সরকারও মদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করে, সেটাও গত তিনবছর ধরে ঝুলেই রয়েছে। হাইকোর্ট সে বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চায় সরকারের কাছে।

শুক্রবার হাইকোর্ট আইনজীবী জেনারেল ললিত কিশোরের কাছ থেকে জানতে চায় যে, ‘‌হাইকোর্টের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ দেখিয়ে রাজ্য সরকার ক’‌টা মামলা সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করেছে?‌‌’‌ ২০১৯ সালের ২১ শে আগস্ট বিচারপতি অনিল কুমার উপাধ্যায়ের একক বেঞ্চের আদেশের ফলে ওঠা মামলার শুনানি চলাকালীন আদালত এই আদেশ দেন। একক বেঞ্চ বিহার নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে সম্পর্কিত ২.০৭ লক্ষের বেশি মামলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে।

গত তিন বছরে ১.‌‌৬৭ লক্ষ মানুষকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং ৫২.০২ লিটার মদ বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। রাজ্য সরকার মামলা নিষ্পত্তির জন্য কি পদক্ষেপ করছে তা মুখ্য সচিবের কাছে বিশদে জানতে চেয়েছে হাইকোর্টের একক বেঞ্চ।