টিডিএন বাংলা ডেস্ক: আরএসএস-বিজেপির‘হারামখোর’লোকেরা আমাকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করছে, খুন হওয়ার আগে এমনটাই অভিযোগ করেছিলেন উত্তরপ্রদেশের লখনউয়ের হিন্দু মহাসভা নেতা কমলেশ তিওয়ারি। শুধু তাই নয় তিনি আরএসএস-বিজেপির লোকদেরকে জারজ বলেও সম্বোধন করেছেন। শনিবার অনলাইনে প্রকাশিত একটি ভিডিওতে এমনটাই দেখা যাচ্ছে। তিওয়ারির কথায়, (“সংঘ অর ভজপা লে লগ”) “হারামখোর” (বেস্টার্ডস)। তিনি ভিডিওটিতে উত্তরপ্রদেশ সরকার যোগী আদিত্যনাথকে তার নিরাপত্তা প্রত্যাহারের নেতৃত্ব দিয়েও অভিযুক্ত করছেন।

“যদি সংঘ (আরএসএস) বা বিজেপির অফিসার বা কর্মীরা মারা যায় তবে আমি কখনই ভাবি না যে আমার চুপ থাকা উচিত কারণ ক্ষতিগ্রস্থরা সংঘের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। আমার মনে হয় এরা হিন্দু। এমনকি আমি কারাগারে গেলেও এই লোকেরা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ভালভাবে চালাতে পারে, তবে আমি তাদের কর্মীদের পক্ষে অনুভব করি এবং আমি তাদের পক্ষে লড়াইয়ে নামি, “ভিডিওটিতে আপ্লুত তিওয়ারি বলেছেন।

তিনি আরও বলেন, “… এমনকি আমি এই জারজদের (‘হামখোর কে লিয়ে’) যারা আমার জীবনের পরে, যারা আমাকে হত্যার ষড়যন্ত্র চালিয়েছে তাদের জন্যও লড়াই করে বেরিয়ে এসেছি … যোগীর সাথে সাথে আমার সুরক্ষা প্রত্যাহার করা হয়েছে সরকার ক্ষমতায় এসেছিল”। শেষে তিনি বলেন, “তবে আমি এখনও লড়াই করছি এবং তাদের দেখিয়ে দিচ্ছি যে আমি নিজের শক্তিতে লড়াই করছি এবং আমি হিন্দুদের পক্ষে লড়াই চালিয়ে যাব”।

শুক্রবার বিকেলে তিওয়ারিকে উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউয়ের খুরশেদা বাগে নিজ বাড়িতে হত্যা করা হয়েছিল। শনিবার পুলিশ এই হত্যার ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে এবং এই ঘটনাটিকে “উগ্র হত্যা” বলে অভিহিত করেছে। মুসলমানদের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ঘৃণাত্মক বক্তব্যের প্রসঙ্গে তাকে হত্যা করা হয়েছিল বলে পুলিশ জানিয়েছে।

তবে, তিওয়ারির মা সরকারী অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন এবং জানতে চেয়েছিলেন যে উত্তরপ্রদেশে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় থাকলেও কেন এখন তাঁর পুত্রকে খুন হতে হল। তিনি আরও বলেন তার পুত্র “আজম খানের” (সমাজবাদী পার্টির সরকার) সময় নিরাপদে ছিলেন। বিজেপি ২০১৭ সালে রাজ্যে অখিলেশ যাদবের নেতৃত্বাধীন সমাজবাদী পার্টি সরকারকে পরাজিত করে ক্ষমতায় আসে।