টিডিএন বাংলা ডেস্ক : আসামে জাতীয় নাগরিকপঞ্জী বা এনআরসি নিয়ে তুমুল বিতর্কের মধ্যেই দেশের অন্যান্য প্রান্তেও অবৈধ বিদেশিদের শনাক্ত করার দাবি তুলছে বিজেপি। আর এই পটভূমিতেই আরও একবার আক্রমণের নিশানায় মুম্বাইয়ের কথিত অবৈধ বাংলাদেশিরা।
মুম্বাইয়ের ভায়ান্দার স্টেশন থেকে একটু দূরেই রয়েছে বিশাল এক কলোনি। লোকের মুখে মুখে যার নাম ‘বাংলাদেশ বস্তি।’

বিজেপির ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও এমপি বিনয় সহস্রবুদ্ধে বলছেন, ‘সুদূর বাংলাদেশ থেকে অসংখ্য লোকজন অবৈধভাবে ভারতে ঢুকে ভায়ান্দারে পাড়ি দিচ্ছে। মুম্বাইয়ের আশেপাশে টিলা-জঙ্গলগুলো দখল করে তারা গড়ে তুলছে বসতি, চালাচ্ছে নানা বেআইনি ধান্দা। এমন কী পুলিশ হানা দিতে গেলেও তাদের পাথর ছুঁড়ে তাড়িয়ে দিচ্ছে এই বাংলাদেশীরা!’
কিন্তু আসলেই কি মুম্বাইয়ের বস্তিগুলোতে এতো বাংলাদেশি রয়েছে? এ প্রশ্নের জবাব খুঁজতে গিয়ে চমক পেয়েছে বিবিসি। কথিত বাংলাদেশ বস্তির বাসিন্দা ঊষা, মুকেশরা বলছেন, তাদের কলোনির নাম বাংলাদেশের নামে হলেও সেখানে একঘর বাঙালি নেই। বরং তাদরে ভাবনায় রয়েছে- কেন বাইরের একটা দেশের নামে তাদের কলোনির নাম।
বস্তির আরও পুরনো বাসিন্দারা বলছেন, চল্লিশ-পঞ্চাশ বছর আগে যখন এই কলোনি গড়ে তোলা হয়, তখন বাংলাদেশের যুদ্ধে জেতার সম্মানেই কিন্তু বস্তির নামকরণ করা হয়েছিল বাংলাদেশের নামে। কিন্তু না, কোনোদিন কোনো বাঙালি এই তল্লাটে কখনওই ছিলেন না। অথচ এই ‘বাংলাদেশ বস্তি’ নামটা ব্যবহার করেই কথিত অবৈধ বিদেশিদের বিরুদ্ধে মুম্বাইয়ের আবেগকে খুঁচিয়ে তুলতে চাইছেন বিজেপি নেতারা।