টিডিএন বাংলা ডেস্ক : কাশ্মীরে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী জাইশ-ই-মোহাম্মদ ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ জারি রয়েছে। সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সোমবার সকালে পুলাওমার পিঙ্গলানা গ্রামে এই লড়াইয়ে ৪ সেনা নিহত হয়েছেন। খতম হয়েছে ২ সন্ত্রাসী । নিহত এক সন্ত্রাসী আব্দুল রশীদ গাজীকে পুলওয়ামা হামলার মাস্টার মাইন্ড বলা হচ্ছে । তবে তার সরকারী নিশ্চিতকরণ এখনো করা হয় নি। একই সময়ে, সংঘর্ষে এক মেজরসহ ৪ জওয়ানক নিহত হয়েছেন।

একদিকে, জওয়ানরা তাদের প্রান দিয়ে লড়াই করছে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে , অন্যদিকে ক্ষমতাসীন বিজেপির লোকজন প্রধানমন্ত্রীকে কৃতিত্ব দিচ্ছে।মিডিয়ার যখন খবরটি আসে যে সৈন্যরা দুই সন্ত্রাসীকে হত্যা করেছে, বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালভিয়া টুইট করেছেন, “এটি একটি নতুন ভারত,এরা ঘরে প্রবেশ করবে এবং মারাও যাবে, আপনাকে ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রী মোদি”।

এখন এখানে কেন শুধু প্রধানমন্ত্রী মোদিকে ধন্যবাদ জানানো হচ্ছে তা বুঝার বাইরে। কেন সেনা জওয়ানদের নয়? মোদী কি সেই দুই সন্ত্রাসবাদীর বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন? হতে পারে, প্রধানমন্ত্রী মোদি এনকাউন্টারের আদেশ দিয়েছিল,কিন্তু সৈন্যরা তাদের জীবন দিয়েছে। ২ সন্ত্রাসী খতম হবার পর প্রধানমন্ত্রীকে যদি কৃতিত্ব দেওয়া হয়, তাহলে চারজন জওয়ান প্রান দেওয়ার পরেও পুরো কৃতিত্ব জওয়ানদের নয় কেন, উঠছে প্রশ্ন। জওয়ানদের বাহদুরতার সহিত লড়ায়ের কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রী মোদিকে দেওয়ার মাধ্যমে অমিত মালভিয়া প্রমাণ করেছেন যে বিজেপি জওয়ানদের মৃত্যুকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করছে।

সাংবাদিক রোহিণী সিং অমিত মালভিয়ার টুইটেকে রিটুইট করে লিখেছেন, “কিন্তু সন্ত্রাসীরা আমাদের ঘরে ছিল। ৪ জওয়ান শহীদ হয়েছেন, প্রথমে ৪০ জন শহীদ হয়ে হয়ে গেল গোয়ান্দা রিপোর্টের পরেও,তারপরেও মোদিকে কেবল ক্রেডিট দেওয়া হবে। মালভিয়াজীর অনুসারে, সেনাবাহিনীর কোন অবদান ছিল না।”