টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিতর্কিত নতুন নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করাই পড়ুয়াদের উপর পুলিশি নির্যাতনের জন্য এবার যোগীর পুলিশের বিরুদ্ধে এফআইআর করবে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়। গতমাসে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ স্তব্ধ  করতে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ঢুকে পড়ে পুলিশ। যোগী পুলিশের এই ‘বাড়াবাড়ি’ রকমের পদক্ষেপের বিরুদ্ধেই অভিযোগ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অন্যতম অভিযোগ, ক্যাম্পাসের হস্টেল ঢুকে সেখানকার আবাসিক পড়ুয়াদের নিগ্রহ করে।

নয়াদিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের প্রতি সংহতি প্রকাশে আলিগড়ের ছাত্রছাত্রীরা ১৫ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। ক্যাম্পাসের ভিতরে সিএএ বিরোধী সেই বিক্ষোভ পণ্ড করতে, উপাচার্যের সহায়তায় পুলিশ ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করলে, সংঘর্ষ বেধে যায়।

আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তারিক মনসুর মঙ্গলবার জানান, বিশ্ববিদ্যালয় হস্টেলে ঢোকার জন্য উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়েরের আবেদন তাঁরা জানাতে চলেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিপিআরও রহত আবরার এক বিবৃতিতে কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, ক্যাম্পাসের ভিতরে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে, পুলিশকে সেখানে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, তাঁদের হস্টেলে ঢোকার অনুমতি কেউ দেয়নি। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ওইদিন ৬০ জন জখম হয়।

তবে ডিরেক্টর জেনারেল অফ পুলিশ ওপি সিং অভিযোগ নস্যাত্‍‌ করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অভিযোগ একদমই ঠিক নয়। আমরা কোনও হস্টলে ঢুকিনি। আর ক্যাম্পাসে ঢোকা হয়েছে, উপাচার্যের কাছে লিখিত অনুমতি নিয়েই।