টিডিএন বাংলা ডেস্ক :  আজমীর শরীফে খাজা মঈনুদ্দিন চিশচি (রহ.) দরগায় চাদর চড়ালেন ইউপিএ চেয়ারপার্সন তথা কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধি এবং কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধি। রবিবার সোনিয়া ও রাহুল-উভয়েই কংগ্রেসের এক প্রতিনিধি দলের হাতে এই চাদর তুলে দেন।

পরে দেশজুড়ে শান্তি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বজায় রাখার বার্তা দিয়ে মা ও ছেলে দুইজনেই জানান, ‘আজমীর শরীফ দরগা ভারতের ধর্ম নিরপেক্ষতার প্রতীক, যেখানে ধর্ম-বর্ণ-জাতি নির্বিশেষে সকল প্রকার মানুষ প্রার্থনা জানায়’।

রাজস্থানের রাজধানী জয়পুর থেকে ১৪৫ কিলোমিটার দূরত্বে রয়েছে আজমীর শরীফ। শহরের ঠিক মাঝখানে পাঁচিল ঘেরা দরগায় রয়েছে সুফি সাধক মঈনুদ্দিন চিশচি (রহ.) মার্বেল মোড়া সমাধি। আর এই সমাধিতে চাদর চড়াতে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান, শীর্ষ রাজনীতিবিদ, কূটনীতিক থেকে শুরু করে সেলিব্রিটিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে পেশাজীবীরা ও সাধারণ মানুষ ভিড় জমান চিশচির দরগায়। শুধু মুসলিমরা নয়, হিন্দুসহ অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরাও প্রার্থনা জানাতে আসেন এখানে। সমাধির সামনে দাঁড়িয়ে নিজেদের মনের কামানা পূরণ করার দোয়া চান।

প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী, ১১৪২ খ্রিস্টাব্দে ইরানে জন্মগ্রহণ করেন হযরত খাজা মঈনুদ্দিন হাসান চিশচি (রহ.)। সুফিবাদের বার্তা গোটা দুনিয়ায় ছড়িয়ে দিতে তিনি তাঁর নিজের দেশ ইরান থেকে অন্য দেশে যাত্রা শুরু করেন। আর ভারতে এসে পাকাপাকিভাবে আজমীরে থেকে যান তিনি।