টিডিএন বাংলা ডেস্ক: চৌকিদার চোর হ্যায়- রাহুল গান্ধীর এই স্লোগান নরেন্দ্র মোদীকে বেশ অস্বস্তিতে ফেলেছে। পাল্টা মোদী সোশ্যাল মিডিয়ায় ম্যায় ভি চৌকিদার- প্রচার শুরু করেন। তাবড় নেতা কর্মী থেকে বিজেপি সমর্থক- সবাই নিজের নামের আগে চৌকিদার জুড়ে দিচ্ছেন। এই নিয়েও বিরোধীরা কটাক্ষ করতে ছাড়ছে না। এই অবস্থায় এদিন প্রধানমন্ত্রী রেডিও বার্তায় দেশের নিরাপত্তারক্ষীদের উদ্দেশ্যে বলেন, চৌকিদার চোর হ্যায়- এটা দেশের প্রহরীদের অসম্মান করার নামান্তর।

বুধবার দেশের ২৫ লক্ষ নিরাপত্তা কর্মীর সঙ্গে অডিও ব্রিজের মাধ্যমে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁকে ফোনে জনৈক মহিলা অভিযোগ করেন, ‘চৌকিদারদের চোরের নজরে দেখছেন বহু মানুষ। চৌকিদারদের হেয় করা হচ্ছে’। প্রধানমন্ত্রী জবাব দেন,”ব্যক্তিগত স্বার্থে কয়েক মাস ধরে গালিগালাজ শুরু করেছেন অনেকে। চৌকিদারকে চোর তকমা দিয়েছেন। দেশের চৌকিদারদের চোর বলেছেন। আমার নামে গালি দিলে ঠিক ছিল। সেই হিম্মত ওদের নেই। কিন্তু চৌকিদারদের চোর বলছেন। হতাশা, নিরাশায় ডুবে থাকা লোক আগামিদিনে আরও এমন সব বলবেন। চৌকিদারদের বদনাম করার নতুন পন্থার আশ্রয় নেবেন। সজাগ থাকতে হবে। চারদিকে পরিবেশ বদলে গিয়েছে”। ম্যাঁ ভি চৌকিদার- কর্মসূচির কথা মনে করিয়ে নরেন্দ্র মোদী বলেন, গোটা দেশে চৌকিদার শব্দ দেশভক্তির সমার্থক হয়ে গিয়েছে।

পুলওয়ামার পর ভারত যে এয়ার স্ট্রাইক করার হিম্মত দেখিয়েছে, সেজন্য নরেন্দ্র মোদীকে ধন্যবাদ জানান ওড়িশার এক নিরাপত্তারক্ষী। মোদীর কথায়,”ধন্যবাদ আপনাকে। সেনার উপরে গর্ব হওয়া উচিত। বোমা পড়েছে পাকিস্তানে, কিন্তু আহত হয়েছেন ভারতের অনেকে। এই ধরনের লোকেদের চিনতে হবে। ওদের সংসদে, রেডিও, টিভিতে আমাদের দেশের লোকেদের আওয়াজ ওখানে শোনা যাচ্ছিল”।

একদিকে বিরোধীরা চৌকিদার চোর হ্যায় প্রচারে দেশের বাতাস গরম করে তুলেছে। মোদী এর জবাব দিতে রোজই নতুন নতুন পথ বের করছেন। মোদ্দা লক্ষ্য তো ভোট বাক্স। কে সফল হয়, এখন সেটাই দেখার।