টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বেশ কয়েকদিন ধরে খবরের শিরোনামে তবলীগ জামাত। মূল ধারার সংবাদ মাধ্যমগুলো গেলো গেলো রব তুলতে শুরু করে। ভাবটা এমন যে এই মুসলিম সংগঠনটি দেশে করোনা ছড়ানোর জন্য দায়ী। একটি সম্প্রদায়কে কালিমালিপ্ত করার প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা করা হচ্ছে।

এরই মধ্যে সামাজিক মাধ্যমে একটি ভিডিও ভাইরাল হতে দেখা যায়। সেখানে দেখা যাচ্ছে যে পুলিশ ভ্যানের মধ্যে থাকা এক ব্যক্তি পুলিশের দিকে থুতু নিক্ষেপ করছে। বলা হয় ওই ব্যক্তি নাকি নিজামুদ্দিন মার্কেজের ধর্মীয় সমাবেশে যোগ দিয়েছিলেন।

ঝড়ের বেগে শেয়ার হয় ভিডিওটি।  অল্ট নিউজ নামক একটি ফ্যাক্ট চেকিং ইংরেজী সংবাদ মাধ্যম বিষয়টির সত্যতা যাচাই করতে শুরু করে।

এই একই ভিডিও মেঘরাজ চৌধুরী নামক ওপর এক ব্যক্তি তার ফেসবুকে শেয়ার করেন। পোস্টের শিরোনামে তিনি হিন্দি হরফে লেখেন -” জিনকো সবুত চাহিয়ে বো এ দেখলো ফ্যারিস্তো কি কর্তুতে। শান্তি সে থুক কা পরিচয় দেতে হুয়ে। য়ে কাল ভি থুক রহে থে আজ ভি।” বাংলায় যার সারমর্ম দাঁড়ায় – যারা প্রমান চান, তারা এই নিন প্রমান। ফেরেশতাদের কীর্তি দেখুন। কেমন শান্তিতে থুতু ফেলছে। এরা গত কালও থুতু ফেলেছে। আজও থুতু ফেলছে।

जिनको सबूत चाहिए वो ये देख लों 👇आतंकवादियों की करतूतें

Posted by Meghraj Choudhary on Thursday, April 2, 2020

মেহরাজের এই ফেসবুক পোস্টটি ২.৫ লক্ষের ও বেশি ব্যক্তি দেখেছেন। ১১,০০০ বার শেয়ার হয়েছে।

অন্য একটি ফেসবুক পেজ ‘সালো আব তুম দোস্তো কো শিখাও গে’ ভিডিও ক্লিপটি শেয়ার করে। ট্যুইটারেও শেয়ার করা হয়। প্রায় ২,০০০ বার রিট্যুইট ও হয়। ভিডিওটির বরাত দিয়ে নর্দান রেলওয়ে পুলিশের সিপিআরও তরফে অভিযোগ করা হয় যে অভব্য আচরণ করে তবলীগ জামাতের লোকেরা। স্বাস্থ্য কর্মীদের দিকে থুতু নিক্ষেপ করে।

এই ভিডিওর সত্যতা কি? ফ্যাক্ট চেক করে অলট নিউজ:

নিজামুদ্দিনের সমাবেশে যারা যোগ দিয়েছিলেন তাদেরকে বাসে করে কোরান্টিন কেন্দ্রে এবং হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অথচ ভিডিতে যে গাড়িটিতে তাদেরকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সেটা কিন্তু একটা পুলিশ ভ্যান। উপরন্ত, গাড়িতে কোন স্বাস্থ্য কর্মী ছিলোনা। না তাদের মুখে  সুরক্ষা মাস্ক ও পরা ছিল না।

কোথাও একটি গড়মিল যে আছে তা অনুমান করে অল্ট নিউজ। এরপরই তাঁরা ইউটিউবে এই ভিডিওটির আসল উৎস খুঁজতে শুরু  করেন। অনুসন্ধান করতেই টাইমস অফ ইন্ডিয়ার একটি রিপোর্ট অল্ট নিউজ এর সাংবাদিকদের নজরে আসে। রিপোর্ট অনুযায়ী, একজন বিচারাধীন ব্যক্তিকে মুম্বই পুলিশ গত শনিবার ভ্যানে করে নিয়ে যাচ্ছিল, পথিমধ্যে ওই ব্যক্তি কয়েকজন পুলিশ কর্মীর গায়ে থুতু নিক্ষেপ করে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ওই ব্যক্তি পুলিশের আচরণে মনক্ষুণ্ণ ছিল। কারন পুলিশ কর্মীরা তাকে বাড়ি থেকে রান্না করে আনা খাবার খেতে অনুমতি দেয়নি। আর সে কারণেই এই অশালীন আচরণ।

ঘটনাটি নিয়ে মুম্বই মিরর ২৯ শে মার্চ একটি প্রতিবেদন লেখে। জানানো হয় ওই অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ সোহেল শওকত আলী। তার পরিবারের লোকজন তার জন্য আদালতে হাজিরার সময় বাড়ি থেকে খাবার রেঁধে নিয়ে যায়। কিন্তু পুলিশ কর্মীরা তাকে খেতে অনুমতি দেয় নি। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় আলী মুম্বইয়ের থানে পুলিশের সঙ্গে বচসায় লিপ্ত হয় এবং অশালীন আচরণ করে।

স্পষ্টত এই ভিডিওর সঙ্গে তবলীগ জামাতের সভার কোন যোগসূত্র নেই। ওই ব্যক্তি তবলীগ জামাতের কর্মী। পুলিশের উপর থুতু নিক্ষেপ করেছে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য। এধরনের কথা বলে যারা এই ভিডিওকে শেয়ার করেছেন তারা আসলেই মিথ্যা প্রচার করছে।

কয়েকদিন আগে অল্ট নিউজ আর একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং রিপোর্ট করে। সেক্ষেত্রে সুফিদের একটি ধর্মীয়  অনুষ্ঠানের ভিডিওকে নিয়ে  মিথ্যা প্রচার করা হচ্ছিল। বলা হয় যে বাগলে ওয়ালী মসজিদের মুসলিমরা ইচ্ছাকৃতভাবে হাঁচি সভার আয়োজন করে।

বোহরা মুসলিমরা খাবারের উচ্ছিষ্ট যাতে নষ্ট না হয় সে জন্য থালা, বর্তন চেটে পুঁছে খেয়ে থাকে এটা তাদের প্রথা। অথচ সামাজিক মাধ্যমে ভিডিওটি শেয়ার করে মিথ্যা প্রচারণা চালানো হয়। বলা হয় মুসমিলরা করোনা রোগ ছড়িয়ে দিচ্ছে। অল্ট নিউজ সে ভিডিওর সত্যতা ও সামনে নিয়ে আসে।

(টিডিএন বাংলায় প্রকাশিত এই প্রতিবেদনটি অনুসন্ধানমূলক ইংরেজী সংবাদ মাধ্যম অল্ট নিউজ থেকে অনূদিত।)