টিডিএন বাংলা ডেস্ক: আমেঠি ছাড়াও কেরালার ওয়ানাদ থেকে লড়বেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তাঁকে হারাতে মরিয়া চেষ্টা চালাবে সিপিআইএম। দলের সিনিয়র নেতা প্রকাশ কারাতের কথা থেকে এটা স্পষ্ট।
প্রকাশ করাত বলেন, সিপিএম এই কেন্দ্র থেকে রাহুল গান্ধীর পরাজয় নিশ্চিত করতে কাজ করবে। সিপিএম নেতৃত্বাধীন বাম ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট ইতিমধ্যেই সিপিআইয়ের পিপি সুনীরকে ওই আসনে প্রার্থী করেছে। কংগ্রেস জানিয়েছিল উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের মধ্যে একটি গভীর বিভাজন তৈরি করতে চলেছেন নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর সরকার। এই প্রচেষ্টাকে প্রতিহত করার জন্য রাহুল গান্ধী ফের মাঠে নামবেন।
এ প্রসঙ্গে রণদীপ সিং সুরযেওয়ালা বলেন, এটা সেই বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই, যারা রঙ, ভাষা, জীবনযাত্রার ভিত্তিতে, খাদ্য অভ্যাস ও পোশাকের উপর ভিত্তি করে ভারতকে বিভক্ত করার চেষ্টা করে। এই কারণে রাহুল গান্ধী বলেন, আমি আমেঠির প্রতিনিধিত্ব করব কিন্তু আমি দক্ষিণ ভারতের রাজ্যের প্রতিনিধিত্বও করব কারণ তাঁরা ভারতের জীবনযাত্রার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কিন্তু সিপিআইএম এই কথায় মোটেও সন্তুষ্ট নয়!
প্রকাশ কারাত বলেন, রাহুল গান্ধীকে কেরালা থেকে নির্বাচনের মাঠে নামানোর সিদ্ধান্তে বোঝা যাচ্ছে এখানে বামপন্থীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করাটাই তাঁদের অগ্রাধিকার। কংগ্রেস বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করার যে জাতীয় অঙ্গীকার করেছে এই কাজ সেটির বিরুদ্ধাচারণ করে। কেরালায় এলডিএফই মূল শক্তি যা বিজেপির বিরুদ্ধে লড়ছে।
তিনি আরও বলেন, বামপন্থী দলের বিরুদ্ধে রাহুল গান্ধীর মতো প্রার্থীকে বেছে নেওয়ার অর্থ হলো কংগ্রেস বামপন্থী দলকেই লক্ষ্য করেছে। এর আমরা দৃঢ়ভাবে বিরোধিতা করব এবং এই নির্বাচনে আমরা রাহুল গান্ধীর পরাজয় নিশ্চিত করব।
গত সপ্তাহেই, কংগ্রেস জানিয়েছে ওয়ানাদ থেকে দ্বিতীয় আসনে রাহুল গান্ধীর প্রতিদ্বন্দ্বিতার কথা ভাবছে দল। এর পরেই কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন প্রশ্ন করেন তাঁরা কোন বার্তা দিতে চাইছেন? মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাহুল গান্ধী যদি কেরালার ওই আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন, তাহলে এর অর্থ হবে তিনি বামফ্রন্টের বিরুদ্ধে লড়াই করবেন, বিজেপির বিরুদ্ধে নয়।
কংগ্রেস ও সিপিআইএম কেরালায় বহুকাল থেকেই একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী। এর ফলেই অজানা এক নিয়মেই প্রতি পাঁচবছর বাদে বাদে দুই দল ক্রমান্বয়ে রাজ্যের শাসক পদে থাকে। পাশাপাশি বাংলায় কিছুকাল আগেও দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দল জোট করলেও এই লোকসভা নির্বাচনে তা ফের ভেঙে গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে দুই দলই এবার পৃথকভাবে লড়বে এ রাজ্যে।