টিডিএন বাংলা ডেস্ক: কেউ রামের শরণ নেবেন কিনা, সেটা তাঁর ব্যক্তিগত ব্যাপার। অথচ এই জয় শ্রীরাম না বলায় আক্রান্ত হতে হল এক তৃণমূল কর্মীকে। নদিয়ায় তেহট্টের ঘটনা। স্থানীয় বিজেপি সমর্থকরা তাঁকে বেধড়ক মারধর করেছেন বলে অভিযোগ। ওই তৃণমূল কর্মী ভর্তি হাসপাতালে। বিজেপির সাফাই, জয় শ্রী রাম বলা কি অপরাধ! না, অপরাধ নয়, কিন্তু কাউকে রামের নামে স্লোগান দিতে বাধ্য করা? তার জন্য তাঁকে মারধর করা! এটা যদি আপরাধ না হয় তাহলে অপরাধ কোনটা?

আক্রান্তের নাম অর্জুন হালদার। তেহট্টের বেতাই বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসে কাজ করেন তিনি। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, রোজ সকালে তৃণমূলের পার্টি অফিস খোলেন অর্জুন। দিনভর পার্টি অফিসে থাকেন। রাতে দরজায় তালা ঝুলিয়ে বাড়িতে যান তিনি। তৃণমূল কর্মী অর্জুন হালদারের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে যখন তিনি পার্টি অফিস বন্ধ করছিলেন, তখন বেতাই বাসস্ট্যান্ডে আসেন কয়েকজন বিজেপি সমর্থক। ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিচ্ছিলেন তাঁরা। প্রতিবাদ করেছিলেন অর্জুন। তখন উল্টে তাঁকেই বিজেপি সমর্থকরা ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে বলেন বলে অভিযোগ। যথারীতি রাজি হননি ওই তৃণমূলকর্মী। অর্জুনের দাবি, তাঁকে বেধড়ক মারধর করেছেন বিজেপি সমর্থকরা। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন তেহট্ট ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি দিলীপ পোদ্দার। আর বিজেপির নদিয়া জেলার সহ-সভাপতি অর্জুন বিশ্বাসের পাল্টা প্রশ্ন, ‘ ‘জয় শ্রীরাম’ বলা কি অপরাধ? বিজেপি সমর্থকদেরই বা কেন প্রতিবাদের মুখে পড়তে হবে?’ কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী কল্যাণ চৌবের বক্তব্য, তৃণমূল কংগ্রেসের যে দেওয়া পিঠ ঠেকে গিয়েছে, এই ঘটনা তারই প্রমাণ। ঘটনার তদন্তে নেমেছে তেহট্ট থানার পুলিশ।