টিডিএন বাংলা ডেস্ক : সারদা চিট ফান্ড কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত আসামের মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মার অপসারণের দাবিতে বুধবার গুয়াহাটিতে মিছিল ও বিক্ষোভ করে সিপিআই (এম)। এদিন বিকেলে হেদায়েৎপুর থেকে দিঘলীপুকুর পর্যন্ত মিছিল করে বিক্ষোভ সংগঠিত হয়। এতে বিভিন্ন অংশের মানুষ অংশ নেন। ‘চোর ধরো, জেলে ভরো, সারদায় অভিযুক্ত মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মাকে অপসারণ করতে হবে, সারদা কেলেঙ্কারির তদন্ত দ্রুত করতে হবে’ ইত্যাদি স্লোগানে মুখরিত হয় মিছিল। এরপর বিক্ষোভে বক্তব্য রাখতে গিয়ে পার্টির রাজ্য সম্পাদক দেবেন ভট্টাচার্য বলেন, অন্যান্য দলের দুর্নীতিগস্ত নেতারা বিজেপি’তে যোগ দিলে তাঁরা ধোয়া তুলসীপাতা হয়ে যান ! তাঁদেরকে তদন্ত থেকে রেহাই দেওয়া হয়। পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা বিজেপি’তে যোগ দেওয়ার পর তদন্ত থেকে তাঁকে রেহাই দিয়েছে মোদী সরকার। একইভাবে আসামের মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মাকেও রেহাই দেওয়া হচ্ছে। কংগ্রেসের আমলে শর্মা মন্ত্রীসভায় থাকাকালীন তাঁর বিরুদ্ধে সারদা কেলেঙ্কারির অভিযোগ ওঠে। লুই বার্জার কেলেঙ্কারিতেও শর্মা অভিযুক্ত। সেসময় শর্মার বিরুদ্ধে মামলা করেন বিজেপি নেতা বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল। শর্মার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়। কিন্তু গ্রেপ্তারি এড়াতে কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপি-তে যোগ দেন শর্মা। তারপরই তদন্তে শ্লথ গতি আসে। শুধু তাই নয়, বিজেপি রাজ্যের ক্ষমতায় এলে হিমন্ত বিশ্ব শর্মাকে মন্ত্রীসভায় সভায় স্থান দেয়। এখন তদন্তের নামগন্ধ নেই। ভট্টাচার্য বলেন, দুর্নীতির ক্ষেত্রে কঠোর অবস্থান নেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসে বিজেপি। এখন দুর্নীতিগস্তদের নিয়ে সরকার পরিচালনা করছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। সারদাকর্তা সুদীপ্ত সেন সিবিআই’কে দেওয়া তাঁর চিঠিতে উল্লেখ করেছেন মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা সারদা থেকে তিন কোটি টাকা নিয়েছেন। মোদী যদি সত্যিই দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চান, তাহলে শর্মাকে মন্ত্রীসভা থেকে অপসারণ করে তদন্ত ক্ষিপ্রতর করুক সরকার।

Advertisement
mamunschool