টিডিএন বাংলা ডেস্ক : চাঁদে বাড়ি বানানোর নকশা তৈরি করে আন্তর্জাতিক সম্মান পেল ৩ তরুণ বাঙালি পড়ুয়া। শুনতে অবাক লাগলেও বিষয়টি সত্যি। অবশ্য যেকোনও কিছু গড়ে তোলার আগে একটি অক্সাইড তৈরি করা হয়। সেইরকমই একটি অক্সাইড তৈরি করে এই পুরস্কার অর্জন করল বাংলার সোহম মুখোপাধ্যায়, ঋষিতা ভৌমিক ও জিষ্ণা চক্রবর্তী।

ইউরোপিয়ান আর্কিটেক্ট অ্যান্ড ডিজাইন সংস্থা বিশ্বব্যাপী ‘মুন সেপশন’ শীর্ষক এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। যার মূল বিষয় ছিল, ” চাঁদে কী ধরনের বাড়ি বানানো হবে, তার নকশা তৈরি”। ওই প্রতিযোগিতায় গোটা বিশ্বের দু’লাখ প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করে। সেই প্রতিযোগিতায় অংশ নেন আসানসোলের কুলটির বাসিন্দা স্নাতকস্তরের আর্কিটেকচারের তৃতীয় বর্ষের পড়ুয়া সোহম মুখোপাধ্যায় কলকাতার ঋষিতা ভৌমিক এবং জিষ্ণা চক্রবর্তী।তাদের মধ্যে সেরা পঞ্চাশে স্থান পেলেন এই তিন পড়ুয়া।

তিন বাঙালি তরুণ গবেষকের নকশায় ফুটে উঠেছে, চাঁদের পাড়াতে থাকবে দুই বা তিন বেডরুমের বাড়ি। অক্সিজেনের চাহিদা মেটাতে ভার্টিক্যাল বাগানে থাকবে অ্যাজোলা নামের শ্যাওলা। এছাড়া চাঁদের যে অংশে বরফের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, সেখানে দশজন পর্যটক ও পাঁচজন বিজ্ঞানী থাকার মতো বাড়ি তৈরি হবে। সেই বাড়িতে রান্না ঘর, মেডিক্যাল রুম থেকে শুরু করে স্টোর রুমও রয়েছে। ‘বর্মের’ ভিতর থাকা লঞ্চপ্যাডে ফাইবার, অ্যালুমিনিয়ামের তার ও পাইপ দিয়ে বাড়ির মডেল তৈরি হয়েছে।বিদ্যুৎশক্তির চাহিদা মেটাতে বর্মের বাইরে বসানো হয়েছে বড় বড় সোলার প্যানেল।