টিডিএন বাংলা ডেস্ক: কোর্টের নির্দেশ সত্ত্বেও স্বামীর সাথে দেখা করতে পারছিনা।সাংবাদিকদের সামনে এমনই অভিযোগ করলেন হাদিয়া। হিন্দু থেকে ইসলাম গ্রহণ করে এক মুসলিম যুবককে বিয়ে করার পরেই ‘লাভ জিহাদের’ তত্ত্ব খাড়া করা হয়। কিন্তু  হাদিয়া স্পষ্ট ভাবে সুপ্রিমকোর্ট ও সাংবাদিকদের জানান, কেউ জোর করেননি, তিনি নিজের পছন্দ মতো ইসলামকে বেছেছেন।
এদিকে বাবা-মার হেফাজত থেকে হাদিয়াকে মুক্তি দিয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত। স্বামীর সঙ্গে সাক্ষাতেও ছাড়পত্র মিলেছে। আদালতের নির্দেশের পরও স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেছেন কেরলের মেয়ে হাদিয়া।
তিনি বলেন, স্বামী শাফিন জাহানের সঙ্গে দেখা করতে চান তিনি। কিন্তু হস্টেলের প্রিন্সিপাল ও বাবা-মা তাঁকে বিভিন্ন বাহানায় ক্রমাগত বাধা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ।
কেরলের শিবরাজ হোমিওপ্যাথি মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী হাদিয়া বলছেন, প্রতিটি নাগরিকের যে অধিকার রয়েছে, সেটুকুই তিনি দাবি করছেন। এটা কোনও ধর্ম বা জাতপাতের বিষয় নয়। নিজের পছন্দের ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলতেই পারেন তিনি। আর সেই কারণেই সুপ্রিম কোর্টের কাছে নিজের স্বাধীনতার দাবি করেছেন। কিন্তু, আদালতের নির্দেশের পরেও নিজের স্বামীর সঙ্গে কোনওভাবেই দেখা করতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামে অংশ নেওয়া হোমিওপ্যাথির ছাত্রী হাদিয়া।