টিডিএন বাংলা ডেস্ক: কলকাতার প্রাক্তন পুলিস কমিশনার রাজীব কুমারকে তলব করেছিল সিবিআই। সোমবার সকাল ১০টায় তাঁকে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দফতরে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার পরও সিবিআই দফতরে রাজীব কুমার হাজির হননি। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাদের একটি সূত্র থেকে তেমনই জানা গিয়েছে। রাজীব কুমার কেন হাজিরা দিলেন নাতিনি এই মুহূর্তে কোথায় রয়েছেনতা নিয়ে এখনও কিছু জানা যায়নি। সিবিআইয়ের একটি সূত্র থেকে জানা গিয়েছেরাজীব কুমার ঠিক কোথায় রয়েছেনতা জানার চেষ্টা করছে সিবিআই। সেই কারণে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার একটি দল বারাসত আদালতে হাজির হয়েছে। একটি দল ভবানী ভবনের সামনে অপেক্ষা করছে। অন্য একটি দল পার্ক স্ট্রিটেও রয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় রাজীব কুমারকে জেরার জন্য তলব করে সিবিআই। তাদের একটি দল পার্ক স্ট্রিটে পুলিস কোয়ার্টারে রাজীব কুমারের বাড়ি যায়। সেখানে নোটিস দেওয়া হয়। এর পর সেখান থেকে ওই দলটি যায় ভবানী ভবনে। সেখানে সিআইডির দফতরেও নোটিস দেওয়া হয়। রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে সারদা মামলার তথ্যপ্রমাণ নষ্টের অভিযোগ রয়েছে। চলতি বছরের শুরু থেকেই রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করার চেষ্টা করছিল সিবিআই। একাধিকবার ডাকার পরও রাজীব কুমার না আসায় তাঁর বাসভবনে ফেব্রুয়ারি মাসের গোড়ায় হাজির হয় সিবিআইয়ের একটি দল। তখন রাজীব কুমার কলকাতার পুলিস কমিশনার। সেদিন কলকাতার রাস্তায় সিবিআই ও কলকাতা পুলিসের মধ্যে কার্যত খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে গিয়েছিল। এর পর সুপ্রিম কোর্টে যায় সিবিআই। শীর্ষ আদালত রাজীব কুমারকে জেরার অনুমতি দেয়। কিন্তু রাজীবকে রক্ষাকবচ দেয়। আদালত জানায়সিবিআই এখনই রাজীবের বিরুদ্ধে কোনও কড়া ব্যবস্থা নিতে পারবে না।

শিলংয়ে সিবিআইয়ের জেরার মুখোমুখি হন রাজীব কুমার। কিন্তু সেই জেরার পর্বে রাজীব কুমার সহযোগিতা করেনি বলে সুপ্রিম কোর্টে অভিযোগ তোলে সিবিআই। এর পর রাজীব কুমারের রক্ষাকবচ সরিয়ে নেয় সুপ্রিম কোর্ট।