টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিজেপি শাষিত উত্তরপ্রদেশে এক নাবালিকা দলিত কন্যার শ্লীলতাহানি সালিশি সভায় শুরু হয় ধুন্ধুমার পরিস্থিতি। দুই পক্ষের লড়াইয়ে মৃত হয়েছে ২ জন এবং আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। সালিশি সভা ঘিরে সোমবার রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় উত্তরপ্রদেশের শাহাজাহানপুরের রোজা এলাকা।

সূত্রের খবর, ১৫ দিন আগে ৩০ বছর বয়সি উচ্চবর্ণের সন্তোষ গুপ্তা ১৫ বছরের দলিত কন্যার শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগ ছিল। তবে এই ঘটনা পুলিশকে জানাতে দেওয়া হয়নি। ২২ জুন নিগৃহীতার তুতো ভাইকে সন্তোষ বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ। এরপর তার বিরুদ্ধে থানায় FIR দায়ের হলেও তাকে গ্রেফতার করা হয়নি।

সোমবার এই বিষয়ে সমঝোতার জন্য দু পক্ষকে আলোচনায় ডাকেন গ্রামের ‘মাতব্বর’রা। সেখানে নিগৃহীতার পরিবারকে সন্তোষের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে নিতে বলা হলে তারা তা করতে অস্বীকার করে। এরপরই পিস্তল বের করে নিগৃহীতার তুতো ভাইকে লক্ষ করে গুলি চালিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় সন্তোষ। এরপর সন্তেষের তুতো ভাই ৩৫ বছরের মায়া প্রকাশ গুপ্তাকে খুঁজে বের করে বেধড়ক পেটায় নিগৃহীতার পরিবার। বেশ কিছুক্ষণ পর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুই আহতকেই হাসপাতালে নিয়ে যায়। মেয়েটির ভাই রাস্তাতেই মারা যান। আর অভিযুক্তের ভাইয়ের মৃত্যু হয় হাসপাতালে।

দু পক্ষের সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। এই ঘটনার পর এলাকায় প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তের পর তদন্তে গাফিলতির অভিযোগে দুই সাব ইনস্পেক্টর ও দুই হেড কনস্টেবলকে বরখাস্ত করেছেম SSP। পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার জন্যই এই ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।