টিডিএন বাংলা ডেস্ক : দিল্লির এক শরণার্থী ক্যাম্পের রোহিঙ্গা মুসলিমরা তাদেরকে মায়ানমারে ফেরত না পাঠাতে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন। তারা বলেছেন, “আমাদের দেশে সম্পূর্ণ শান্তি না আসা পর্যন্ত দয়া করে আমাদের মায়ানমারে ফেরত পাঠাবেন না, আমরা অসহায়, আমাদের এখানে থাকতে দিন। ওরা আমাদের মেরে ফেলবে।”
দিল্লির ওই শরণার্থী ক্যাম্পের এক বাসিন্দা গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, “ভারত থেকে সম্প্রতি যে সাত শরণার্থীকে মায়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়েছে, তারা আর বেশি দিন বাঁচতে পারবেন না। খুব শিগগিরি তাদেরকে হত্যা করা হবে।”

দিল্লির কালিন্দিকুঞ্জ ক্যাম্পে থাকা মুহাম্মদ ফারুক গণমাধ্যমকে বলেন, “আমি এখানে ২০১২ সাল থেকে বাস করছি। সরকারের উদ্দেশ্যে আমাদের একটিই আবেদন, আমাদের এখানে থাকতে দেয়া হোক। আমরা মায়ানমারে অনেক অত্যাচার সহ্য করেছি। কোনো প্রলোভনে নিজের দেশ ছেড়ে এখানে আসিনি।”

তিনি বলেন, “আমাদের সমস্ত তথ্য রাষ্ট্রসংঘের কাছে আছে। কিছুদিন আগে পুলিশ বর্মী ভাষার এক ফরম নিয়ে এসেছিল কিন্তু আমরা তা পূরণ করতে অস্বীকার করেছি।”

হারুণ নামে এক রোহিঙ্গা শরণার্থী বলেন, “আমরা ২০০৫ সাল থেকে ভারতে বাস করছি। কিন্তু সরকার ২০১৭ সাল থেকে ভিসা নবায়ন করা বন্ধ করে দিয়েছে। মায়ানমারে আজও আমাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে।”

সম্প্রতি আসামের শিলচরের কাছাড় কেন্দ্রীয় কারাগারের ডিটেনশন ক্যাম্পে থাকা সাত রোহিঙ্গা যুবককে মায়ানমার কর্তৃপক্ষের হাতে হস্তান্তর করেছে কেন্দ্র। বেআইনিভাবে ভারতে ঢোকার দায়ে ২০১২ সালে তারা গ্রেফতার হয়েছিল।

রাষ্ট্রসংঘের শরণার্থী সংস্থায় নিবন্ধিত তথ্য অনুযায়ী ভারতে ১৪ হাজার রোহিঙ্গা বাস করেন। কিন্তু সরকারি তথ্য মতে ওই সংখ্যা ৪০ হাজারেরও বেশি হবে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং সম্প্রতি রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করে তাদের বায়োমেট্রিক তথ্য নথিভুক্ত করতে রাজ্যগুলিকে নির্দেশ দিয়েছেন। ওই রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে কূটনৈতিক পথে মায়ানমারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সমস্যার সমাধান করা হবে বলেও রাজনাথ সিং বলেন। কেন্দ্রীয় সরকার দেশ থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বহিষ্কার করার পক্ষপাতি।