টিডিএন বাংলা ডেস্ক: নাগরিকত্ব আইন নিয়ে দেশজুড়ে তীব্র আন্দোলন চলছে। কিন্তু এরপরেও দেশজুড়ে এনআরসি করা হবে বলে বার বার হুঙ্কার দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। মানুষের মন এখন সিএএ-এনআরসি’র আতঙ্কে আতঙ্কিত। কারন এনআরসি’র পরেই থাকছে ডিটেনশন ক্যাম্পে যাওয়ার ভয়। সব মিলিয়ে মানুষ চরম ভাবে যে আতঙ্কিত তার ফের প্রমান মিলল পূর্ব মেদিনীপুরে। নথিপত্র ঠিক হয়নি, যার ফলে সিএএ-এনআরসি’র আতঙ্কে পেটে ছুরি ঢুকিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন এক খেটে খাওয়া এই দিনমজুর। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুরের বসন্তিয়া গ্রামে। জানাগেছে গুরুতর আহত ওই ব্যক্তির নাম শেখ তাহেরুদ্দিন। তাকে উদ্ধার করে কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানাগেছে, তাহেরুদ্দিন তার পেটে ছুরি এমন ভাবে চালিয়েছেন যে পাকস্থলী বেরিয়ে এসেছে।

শেখ তাহেরুদ্দিনের পরিবারের অভিযোগ, কেন্দ্র সরকারের এই সিএএ এবং এনআরসি আতঙ্কের জন্যই এই ঘটনা ঘটেছে। প্রতিবেশী শেখ মালিক বলেন, প্রায় ২ মাস থেকেই তাহেরুদ্দিন এনআরসি, সিএএ’র আতঙ্কে ভুগছিলেন। কয়েকদিন ধরেই তাহেরুদ্দিন তাঁর আধার, ভোটার কার্ড সহ একাধিক তথ্যের ভুল সংশোধনের জন্য হন্যে হয়ে ঘুরেছেন। সরকারি দফতরের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে বেরিয়েও কাজ হয়নি। বাবা শেখ মোক্তারুদ্দিনের নথিপত্রের সংশোধন করাতে না পেরেই এদিন আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তাহেরুদ্দিন।

এছাড়াও দিলীপ ঘোষদের একের পর এক বিতর্কিত ও ‘বিদ্বেষমূলক’ মন্তব্য ভীতির জন্ম দিয়েছে এবং তাহেরকে দিশেহারা করেছে বলেও অভিযোগ করেন প্রতিবেশী শেখ মালিক।

পুলিশের তরফে জানান হয়েছে, “তাহেরুদ্দিন এখন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সুস্থ হওয়ার পর যদি ওনার পরিবার লিখিত অভিযোগ করে, সেক্ষেত্রে তদন্ত করে দেখা হবে।”