টিডিএন বাংলা ডেস্ক: গোটা বিশ্ব যখন বিজ্ঞানচর্চায় মগ্ন, করোনা ভাইরাসের ওষুধ ও ভ্যাকসিন তৈরিতে যখন ব্যস্ত চিকিত্‍সা বিজ্ঞানীরা। দেশ যখন ডিজিটাল জীবন ব্যবস্থার উপর নির্ভর করতে চলেছে, তখন ওড়িশায় দেওয়া হল নরবলি! করোনা মহামারি রুখতে মন্দিরের মধ্যেই যুবকের মুণ্ডু কেটে পুজো দিলেন পুরোহিত। চরম নৃশংস ও কুসংস্কারের ঘটনায় অবাক দেশ। বুধবার মধ্যরাতে এই গা শিউরে ওঠা ঘটনাটি ঘটে ওড়িশার কটকের নরসিংহপুর থানা এলাকায়৷ ৭২ বছর অভিযুক্ত পুরোহিতের নাম সনসারি ওঝা। নরবলি দেওয়ার পর পুরোহিতের বক্তব্য, ভগবান তুষ্ট হবে৷ করোনা মহামারি থেমে যাবে৷ পুজো শেষে সে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে৷

খবরে প্রকাশ, যাকে নরবলি দিয়েছে, সেই যুবকের নাম সরোজ কুমার প্রধান, বয়স ২৫৷ একটি কুড়ুল দিয়ে যুবকের ধর থেকে মাথা আলাদা করে দিয়েছিল ওই পুরোহিত৷ সেই কুড়ুলটি উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ সরোজের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে৷ স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ওই যুবকের সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরেই বচসা ছিল পুরোহিতের৷

অভিযুক্ত পুরোহিত পুলিশকে জানিয়েছে, নরবলির আগে তার সঙ্গে সরোজের বচসা হয়৷ পুলিশি জেরায় ওই পুরোহিত বলে, স্বপ্নে তাকে ভগবান নির্দেশ দিয়েছিল, নরবলি দিলেই করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেমে যাবে৷ ভগবানের নির্দেশেই সে নাকি নরবলি দিয়েছে৷

ডিআইজি (সেন্ট্রাল রেঞ্জ) আশিস কুমার সিংয়ের কথায়, ‘অপরাধি প্রচণ্ড মদ্যপ ছিল বলি দেওয়ার সময়৷ রাতে নরবলি দিয়ে সকালে তার হুঁশ ফেরে৷ তারপর আত্মসমর্পণ করে৷’