টিডিএন বাংলা ডেস্ক: হজযাত্রীদের বিভিন্ন পরিষেবা প্রদানে সুদের টাকা খরচ করা হয়, আর তা অবিলম্বে বন্ধ করা দরকার। এমনই স্পর্শকাতর অভিযোগ প্রকাশ্যে আনলেন, মহারাষ্ট্র হজ কমিটির চেয়ারম্যান জামাল সিদ্দিকী। তিনি জানান, কেন্দ্রীয় হজ কমিটি বিভিন্ন ব্যাংকে প্রায় তিন হাজার দুশো কোটি টাকা ফিক্সড ডিপোজিট করে রেখেছে। সেই টাকার বার্ষিক সুদ থেকে কর্মীদের বেতন, বিভিন্ন সভা ও অন্যান্য কাজ করা হয়। একটি উর্দু সংবাদপত্রে এমনই খবর ছাপা হয়েছে বলে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা এএনআই। তারা উল্লেখ করেছে, জামাল সিদ্দিকী বলেন, কেন্দ্রীয় হজ কমিটির বার্ষিক বাজেট ৭ কোটি টাকা। অন্যদিকে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে তারা ৭-২৭ কোটি টাকা সুদ হিসাবে পায়। উল্লেখ্য হজ কমিটির বাজেটের টাকা হজযাত্রীদোর জন্য বিভিন্ন ওরিয়েন্টাল ক্যাম্প বা তীর্থযাত্রীদের যাতায়াতে খরচ করা হয়ে থাকে। জামিল বলেন, ইসলাম ধর্মে সুদকে হারাম করা হয়েছে। তাই হজের মতো পবিত্র কাজে সুদের টাকার ব্যবহার অবিলম্বে বন্ধ করা হোক। অন্যদিকে সেই টাকায় মক্কা মদিনায় হজ্বযাত্রীদের জন্য থাকার জায়গা কেনা যেতে পারে, ফলে ভাড়ার টাকা বাঁচবে বলেও তিনি কেন্দ্রীয় হজ কমিটিকে পরামর্শ দেন। অন্যদিকে সেখান থেকে রোজগারও হতে পারে। এই মর্মে জামাল সিদ্দিকী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও সংখ্যালঘু মন্ত্রী আব্বাস নাকভীকে চিঠিও দিয়েছেন বলে খবর।