টিডিএন বাংলা ডেস্ক: মুসলিম পক্ষকে ৫ এক‍র জমি কেন? তাদেরকে জমি দেওয়া সুপ্রিম কোর্টের ভুল সিদ্ধান্ত। এই প্রশ্ন তুলে অযোধ্যা মামলার সুপ্রিম রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ পিটিশন দাখিল করবে করতে চলেছে অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভা। জানা গিয়েছে ৯ ডিসেম্বর এই আবেদন জমা দিবে তারা। হিন্দু মহাসভা জানিয়েছে, তারা রায়ের কপি খতিয়ে দেখেছে। এর বিরুদ্ধে তারা রিভিউ পিটিশন দাখিল করবে।

অখিল ভারত হিন্দু মহাসভার বর্তমান সভাপতি তথা আইনজীবী শিশির চতুর্বেদী বলেছেন, আদালতের এই ধরনের আদেশে তাদের তীব্র বিরোধিতার কথা জানিয়েছে। যদি প্রমাণিত হয় মন্দির সেখানে ছিল, তাহলে জমি কেন তাদের(সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড) দেওয়া হবে, প্রশ্ন তুলেছে হিন্দু মহাসভা।

২০১০ সালে অযোধ্যা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধেও আবেদন করেছিল তারা। ২০১১ সালে সেই আবেদন করেছিলেন তৎকালীন সভাপতি কমলেশ তিওয়ারি। ১৮ অক্টোবর লখনৌতে নিজের বাসভবনে তাঁকে হত্যা করা হয়েছে।

হিন্দু মহাসভার বর্তমান সভাপতি তথা আইনজীবী শিশির চতুর্বেদী জানিয়েছেন, একবছরের বেশি আগে তিওয়ারিকে হিন্দু মহাসভার পদ থেকে সরানো হয়েছিল। সেই জন্য তিনি কমলেশ তিওয়ারির পক্ষে এই মামলা নিয়ে পাওয়ার অফ অ্যাটর্নির জন্য আবেদন করেছিলেন বলে জানিয়েছেন।

এদিকে অযোধ্যা মামলার রায়ের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতে আজ রিভিউ পিটিশন দাখিল করেছে চারটি পক্ষ। পাশাপাশি ২ ডিসেম্বর এই সংক্রান্ত প্রথম রিভিউ পিটিশনটি দাখিল করেছিল জমিয়ত উলেমায়ে হিন্দ।

অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক মৌলনা ওয়ালি রহমানি জানিয়েছেন, মুসলিমরা বিচার বিভাগকে বিশ্বাস করেন। কিন্তু সেই বিশ্বাস সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পরেই দুর্বল হয়ে গিয়েছে। তিনি আরও দাবি করেছেন, দেশের ৯৯ শতাংশ মুসলিম চান অযোধ্যার রায় নিয়ে রিভিউ পিটিশন দাখিল করা হোক।

৯ নভেম্বর বহু প্রতিক্ষিত অযোধ্যা জমি বিতর্কের রায় ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিমকোর্টের এই ঐতিহাসিক রায়ে বিবাদের মূলে থাকা ২.৭৭ একর জমিটি হিন্দুদের দেওয়ার কথা বলা হয়। এবং তা তৈরির জন্য তিনমাসের মধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারকে ট্রাস্ট গঠন করতে হবে বলেও জানিয়ে দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

পাশাপাশি শীর্ষ আদালত জানায়, ১৯৯২ সালে মসজিদ ভাঙা বেআইনি ছিল। এছাড়া মুসলিমপক্ষকে অযোধ্যাতেই পাঁচ একর জমি দিতে বলে শীর্ষ আদালত।

প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক বেঞ্চ অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জমি রাম মন্দির করার জন্য হিন্দু পক্ষের হাতে তুলে দেয়।