টিডিএন বাংলা ডেস্ক: নাকে নল, রুগ্ন শরীর। দীর্ঘ দিন পর প্রকাশ্যে এলেন এই চেহারায়। ক্ষীণ কণ্ঠস্বরে এই বছরের জানুয়ারিতেই বললেন, জীবনের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত গোয়ার জন্য কাজ করতে চাই। গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবেই বিদায় নিলেন মনোহর পার্রিকর। পূর্ণ হল অন্তিম ইচ্ছা।

সব চেষ্টা ব্যর্থ করে চলে গেলেন গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পর্রিকর। দীর্ঘদিন ধরেই অগ্নাশয়ের ক্যানসারে ভুগছিলেন। রবিবার নিজের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। রাত আটটা নাগাদ পর্রিকরের মৃত্যুসংবাদ দেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ।

বিদেশে চিকিৎসা চালানোর পর দিল্লির এইমস এক মাস ভর্তি ছিলেন। এক সময়ে তাঁকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। সেখানেই পর্রিকরের চিকিৎসা চলছিল। গত কয়েকদিন যাবত্‍ শরীর আরও ভেঙে পড়ে। এদিন বিকেল থেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন চিকিত্‍সকরা।  তাঁর দফতরের তরফে জানানো হয়, তিনি অত্যন্ত সঙ্কটজনক। চিকিৎসকরা তাঁদের আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যান। তবে শেষ রক্ষা হল না।

১৯৫৫ সালের ১৩ ডিসেম্বর গোয়ায় জন্ম হয়েছিল মনোহর পর্রিকরের। আইআইটি বোম্বে থেকে মেটালারজিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে গ্র্যাজুয়েট। মেধাবী এই ছাত্র রাজনীতির প্রতি একসময় আকর্ষণ অনুভব করেন। তাই রাজনীতিতে তাঁর পা রাখা। সাফল্য আসতে সময় লাগেনি। ২০০০ সালে প্রথম গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি। ২০০৫ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন পর্রিকর। ফের ২০১২ – ২০১৪ সাল পর্যন্ত গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। ২০১৪ সালে মোদী সরকারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের দায়িত্ব পান তিনি। ২০১৪ সালে তাই তাঁকে গোয়া থেকে দিল্লি এনে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব দেন মোদী। কিন্তু ফের তাঁকে গোয়ার রাজনীতিতে ফিরতে হয়। এবার আবার মুখ্যমন্ত্রী। এর কয়েকদিন পর অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি।

পর্রিকরের অসুস্থতার খবর ছড়ানোর পর থেকেই গোয়ার রাজনীতিতে টালমাটাল চলছে। গোয়ায় বিভিন্ন সময়ে সরকার গঠনের দাবি পেশ করেছে কংগ্রেস। অভিযোগ, পার্রিকর অসুস্থ থাকায় গোয়ার প্রশাসনিক কাজ ব্যহত হচ্ছে। গতকাল ফের গোয়ার সরকার গড়ার দাবি জানায় কংগ্রেস। এদিন গোয়ার রাজনৈতিক অবস্থা নিয়ে জরুরি বৈঠক করে বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। পরিস্থিতি কোন দিকে গড়ায়, এখন সেটাই দেখার।